Thursday, June 9, 2011

ফুলে ভ্রমর ... রহস্যময়ি জিনিয়া ভাবি

আমি তারেক। থাকি ঢাকায় । আমার পরিবারে শুধু মা আছে । বাবা মারা গিয়েছে আরও ৭ বছর আগে । আমি এখন বি বি এ করছি একটা প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি থেকে। মহামদপুরে আমাদের ছোট একটি দোতালা বাড়ি আছে যার নীচতলা ভাড়া দেওয়া । আর উপরের তলায় আমরা নিজেরা থাকি । সম্প্রতি নীচতলায় ভাড়াটিয়া পরিবর্তন হয়েছে । ভাড়াটিয়াদের ব্যাপার স্যপার মা সামলায়। তাই আমি এদের সম্পর্কে বেশি কিছুই জানি না । শুধু এতোটুকু জানি যারা এসেছে তারা মাত্র দুইজন । স্বামী আর স্ত্রী । স্বামী মনে হয় ভাল কোন চাকরি করে । প্রতিদিন সকালে তাঁকে আমি ব্যাগ হাতে বের হয়ে যেতে দেখি । তার বউ কে আমি এখনও দেখিনি ।

কিন্তু আমি তখনও জানিনা অদুর ভবিষ্যতে আমার জীবনে কি ঘটতে যাচ্ছে ।

আমি ছাঁদে যেতে অনেক পছন্দ করি । ছাঁদে মা বেশ কয়েকটি ফুল এর টব লাগিয়েছে । সকালে দুপুরে যখনি আমার সিগারেটের তেষ্টা পায় আমি ছাদে চলে যাই । ওখানে দাড়িয়ে সিগারেট টানছি একদিন দুপুরে । ১২ টা হবে তখন
আমি মাত্র সিগারেট ধরিয়ে এক টান দিয়েছে । ছাঁদে এক মহিলা কাপড় শুকাতে দিতে আসল । ওইস শালা ।আমি শুধুই চেয়ে থাকলাম । মামা । বিশ্বাস করেন।  আমার জীবনে আমি এত সুন্দর আর সেক্সি মহিলা আর দেখিনাই আগে । মহিলা না বলে মেয়ে বলা উচিত । লম্বায় ৫,৬" বা তার বেশিও হতে পারে । সরিলের কোথাও এতোটুকু বাড়তি মেদ আছে বলে মনে হয় না । ভরাট স্বাস্থ্য । কিন্তু একটুও মোটা না । বরং হাল্কাই লাগে কিছুটা । দুধ দুইটা যেন গরম দুইটা বল । যত বার তাকিয়েছি আমার চোখ পুড়িয়ে দিয়েছে । জটিল সাইজ । একদম মাপ মতোর চেয়ে একটু বড় । পাছা একেবারে টাইট কিন্তু সামান্য ভারি ।
একটা শাড়ি পরে আছে । অপেক্ষাকৃত সরু এবং ফর্সা কোমর দেখা যাচ্ছে শাড়ির পাশ দিয়ে ।  শাড়ি একটু নামিয়ে পরেছে । তাই অসসম্ভ সেক্সি আর হট লাগছে ।
তুমি এভাবে কি দেখছ ?
উনার সরসরি প্রস্নে আমার বিহম্বল ভাব আরও বেড়ে গেল । ছাঁদে ফুল গুলর সাথে আরেকটি হট ফুল যোগ হয়েছে তাই দেখছিলাম আরকি । আমি ইজি থেকে আনসার দিলাম ।
ওমা ।ছাঁদে দেখছি একটি ভ্রমরও আছে ।
উনার কথায় আমি যেন হুস হারিয়ে ফেললাম ।

সাবধানে থাকবেন । নয়ত মধু খেতে আসতে পারে । আমি হাসলাম ।
তো ভ্রমর সাহেব ।মহিলা হাত বাড়িয়ে দিল । আপনার সাথে পরিচিত হতে পেরে খুসি হলাম । আমি তোমার জেরিন ভাবি । তোমাদের নতুন ভাড়াটিয়া ।
আমি হাত ধরে থাকলাম । আর আঙুল গুলো উনার নরম হাতের তালুতে হালকা বুলাতে লাগলাম ।
মনে হচ্ছে এখানে আমার সময় ভাল কাটবে ।হাত ছাড়িয়ে নিতে নিতে বললেন উনি ।
হাত ছারতে ইচ্ছে করছিলো না আমার । তারপর ও ছেড়ে দিলাম । মার আপাদ মস্তকে চোখ বুলিয়ে প্যান্টের উপর এসে উনার দৃষ্টি থমকে গেল । কারন আমার ধন ততোক্ষণে বেশ ফুলে গেছে ।
নিজেকে সামলে নিলেন উনি । তো চলি । পরে কথা হবে আবার । আমি বললাম সিওর ।
ছাদ থেকে বালতি নিয়ে নেমে গেলেন উনি ।

এদিকে আমার মনে বাজতে শুরু করে দিয়েছে এক অজানা রহস্যময় সুরের ঝঙ্কার ।
আসছে ... আমার সরিল নতুন কোন খেলার জন্যে প্রস্তুত হচ্ছে । টের পেলাম আমি ।


চলবে......

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*