Thursday, June 23, 2011

কিমাত


নীতিশ এসেছিল মুম্বইতে, অফিস এর কাজে। সে একটি মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির সিনিয়ার প্রজেক্ট আর্কিটেক্ট। মুম্বইতে তার একটা প্রেজেন্টেশান ছিল। সেটার জন্য দু-দিন লেগে গেল। সকাল থেকে রাত অব্দি প্রেজেন্টেশান দিয়ে ক্লান্ত নিতীশ পারেল এর গেস্টহাউস এ এসে শুয়ে পড়ল। শুয়ে শুয়ে ভাবতে লাগলো গোয়া ঘুরে এলে কেমন হয়, এত কাছে এসে না যাওয়ার তো মানে হয়না। একটু পরে যে ছেলেটা ওর রাতের খাবার নিয়ে এল তাকে জিজ্ঞাসা করে গোয়া যাবার ও আসার উপায় জেনে নিল। নীতিশের ব্যক্তিগত জীবনে বউ ও সন্তান আছে, কিন্তু তাও সে কোনও মেয়ে দেখলেই তাদের পিছনে ঘুরঘুর করে। চান্স পেলেই শুয়ে পরে। এই কারনে ওর পুরুষ সহকর্মীরা গোপনে ওর নাম দিয়েছে মিনি জেমস বন্ড (007M)। ক্যাসানোভা নীতিশ কিন্তু কাজের দিক থেকে খুবই প্রফেশনাল ও অত্যন্ত দক্ষ। তাই ওর কোম্পানির সিনিয়াররা ওর দোষত্রুটি ও মহিলাপ্রীতি অনেকক্ষেত্রে চোখবুঁজে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন। নীতিশ ঠিক করল কালকেই বেরিয়ে পরবে। ওর রিটার্ন টিকিট, আজকে সকালেই ও হাতে পেয়েছে সেটা, দু’দিন পরের। জিনিসপত্র, অর্থাৎ ওর ট্রাভেলার্স ব্যাগ যা ও বিভিন্ন প্রেজেন্টেশানে নিয়ে যায়, গুছিয়ে ঘুমিয়ে পড়ল নীতিশ। স্বপ্ন দেখতে লাগলো গোয়ার বিচের স্বল্পবাসী সুন্দরীদের। মনের মধ্যে একটা আশা থাকলো যে গোয়া ভ্রমণটা হয়ত নিরামিশ হবে না।

খুব ভোরবেলা উঠে নীতিশ চলে এল মুম্বই এর ভিটি স্টেশনে ও মান্ডভী এক্সপ্রেসে চেপে বসল একটা কারেন্ট রিজার্ভেশন করে। সারা রাস্তা এক এর পর এক টানেল ও পাহাড় পার হয়ে বিকালে পৌঁছে গেল মাডগাঁও। ওখানে ট্যুরিস্ট অফিস থেকে খোঁজখবর নিয়ে একটা ট্যাক্সি ভাড়া করে নীতিশ চলে এল মার্টিন’স কর্নারে। একটা কটেজ ভাড়া নিল দুদিন এর জন্য। আশেপাশে বিস্তর দেশি ও বিদেশিরা কটেজ ভাড়া করে আছে, সামনেই সানসেট বিচ। স্বল্পবাস বিদেশি মহিলারা বিচে ঘুরে বেরাচ্ছে। সন্ধ্যা হয়ে আসছিল। নীতিশ কটেজের লনে দাঁড়িয়ে সমুদ্রে সূর্যাস্ত দেখছিল, এই সময় ওর চোখে পড়ল একটি মেয়েকে। বছর পঁচিশের মতো হবে, স্লিম ফিগার, সোনালি চুল, একটা সাদা টপ ও কালো জিনস শর্টস পরে সমুদ্রের দিকে তাকিয়ে আছে। নীতিশ দেখতে লাগলো মেয়েটিকে। বেশি দুরে ছিল না সে। একনাগাড়ে মেয়েটিকে দেখতে দেখতে নীতিশ এর ক্যাসানোভা প্রবৃত্তি জেগে উঠলো, ঠিক এইসময় মেয়েটি ওর দিকে ফিরল। মিস্টি দেখতে, যাকে বলে কিউট। নীতিশ এর যতটুকু বাকি ছিল তাও শেষ হয়ে গেল। মেয়েটি নীতিশ এর দিকে একটু তাকিয়ে থেকে একটা হাল্কা স্মাইল দিয়ে কটেজ এর ভিতর চলে গেল। নীতিশ মনে মনে ক্ষেপে উঠল, এই বিদেশিনিকে যেভাবেই হোক বিছানায় তুলতে হবে। নিজের কটেজে ফিরে এসে নীতিশ মেয়েটির ব্যাপারে ভাবতে লাগলো, প্ল্যান বানাতে লাগলো কিভাবে মেয়েটির সাথে শোয়া যায়। রাত নয়টা নাগাদ নীতিশ খেতে এল লাগোয়া ডাইনিং কটেজে। আশাতীতভাবে সে দেখতে পেল মেয়েটি একলা বসে রয়েছে একটি টেবিলে। এগিয়ে গেল নীতিশ — “May I beg your pardon please, can I seat here with you?” কর্পোরেট স্টাইলে বলা কথাগুলি মেয়েটির কানে যেতেই চোখ তুললো মেয়েটি, মিস্টি হেসে বললো – “Of-course gentleman, you may”. গলে গেল 007M, উল্টোদিকে চেয়ারে বসে নীতিশ বললো – “Hi, I’m Niteesh & you”? মেয়েটি জানাল- “I’m Astley, from USA.” মেয়েটির সাথে আলাপ জমে গেল নীতিশের। নিজের কথা বললো, কি কারনে সে গোয়া এসেছে তাও বললো। মেয়েটি জানালো যে সে একটি ওহিয়োতে একটি ফটোগ্রাফি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট এর সাথে যুক্ত। ফটোশুট করতে সে গোয়া এসেছে। ছটফটে, টকেটিভ মেয়েটির কথা বলার ভিতর কেমন একটি মোহিনীশক্তি ছিল, নীতিশ মোহাচ্ছন্ন হয়ে গেল ধীরে ধীরে। মাথায় শুধু ঘুরতে লাগলো কিভাবে… কিভাবে…। দুজনে একসাথে খাবার অর্ডার করল। দু’পেগ ওয়াইনও নিল সাথে। খেতে খেতে অনেক রকম কথা হল দুজনের। নীতিশ মোহাচ্ছন্ন অবস্থাতেই লক্ষ্য করল অ্যাশলে রীতিমত ক্লোজ হয়ে উঠছে ওর সাথে। হার্ড ড্রিন্কের অফার করল নীতিশ অ্যাশলেকে। নিজের কান কেও বিশ্বাস করতে পারল না নীতিশ যখন সে শুনলো- may we have it in your room, if you don’ mind। নীতিশ বুঝে নিল অ্যাশলে লাইনে চলে এসেছে, এইবার কায়দা করে ছিপে মাছ তুলতে হবে। নীতিশ সানন্দে রাজি হল ও অ্যাশলেকে ওয়েলকাম জানালো নিজের রুমে। মনটা ফুরফুর করছে 007M এর। লাগোয়া বার থেকে ড্রিন্ক ও প্রয়োজনীয় খাদ্য ডাইনিং থেকে প্যাক করে নীতিশ অ্যাশলেকে নিয়ে নিজের কটেজে এলো।
খাটে আধশোয়া হয়ে ড্রিন্ক করছিল নীতিশ। পেগ ছয়েক শেষ করেছে, তার সাথে চিকেন-ফ্রাই ও ফ্রায়েড চানা। বামপাশে বসে মেয়েটা নানা বকবক করছিল মাত্র দু’পেগ শেষ করে। মাঝে মাঝে গল্প করার ছলে নীতিশ অ্যাশলের কাঁধে, হাতে, খোলা হাঁটুতে হাল্কা করে আঙুল বুলিয়ে দিচ্ছিল, ওকে জাগিয়ে তোলার জন্য। করতে করতে নীতিশ দেখল মেয়েটি হঠাৎ ওর পেটে মাথা রেখে শুয়ে পরলো। নীতিশ একবার ডাকলো – Astley, ও সাড়া দিল না। হেলান দেওয়া অবস্থা থেকে একটু উঠে নীতিশ দেখল অ্যাশলের চোখ বন্ধ, টপটা কিছুটা উঠে পেট ও নাভি দেখা যাচ্ছে। নীতিশ সুযোগ খুজছিল। খাট থেকে হাত বাড়িয়ে বড় লাইটটা নিভিয়ে নাইট-ল্যাম্প জ্বালিয়ে দিল। অ্যাশলের নাভিতে নিজের বামহাতের তর্জনিটা রাখল। অ্যাশলে বাধা দিল না, উম করে উঠলো গলার মধ্যে। 007M নিজের বামহাত বোলাতে থাকলো অ্যাশলের পেটের উপর। ধীরে ধীরে ওর আঙুল ঢুকে গেল অ্যাশলের শর্টসের ভিতর। এতদিন নানা মহিলার সাথে শুয়ে অভিজ্ঞ নীতিশ খুঁজে পেল থং-এর নিচে অ্যাশলের সুন্দরভাবে শেভ করা পিউবিক এরিয়া। মদের নেশা তো ছিলই, তার সাথে যুক্ত হল সেক্স এর নেশা। ঠিক এই সময় অ্যাশলে সাড়া দিল। তার মুখ দিয়ে কিছু আদুরে বেরিয়ে এল, সে ডানদিকে গড়িয়ে চলে গেল নীতিশের ঊরূসন্ধিতে এবং নিজেই জিপার খুলে মুখ লাগালো তার পুরুষাঙ্গতে। কেঁপে উঠলো নীতিশ, মুখ দিয়ে বেরিয়ে এল কিছু অর্ধশব্দাংশ। হাত রাখল সে অ্যাশলের পিঠে। ওদিকে অ্যাশলে চুষে যাচ্ছিল নীতিশকে। জিভ ও ঠোঁট দিয়ে পুরুষাঙ্গের মাথা ও চর্মাবরন এত সুন্দরভাবে চুষছিল যে কেঁপে কেঁপে উঠছিল নীতিশ। অনেক মহিলার সাথে ও শুয়েছে কিন্তু এত সুন্দর ব্লোজব কেউ দেয়নি। অ্যাশলের মুখ থেকে লালা বেরিয়ে ভিজিয়ে দিয়েছে নীতিশের প্যান্টের কিছু অংশ। নীতিশ মাঝে মাঝে অ্যাশলের মাথা চেপে ধরছিল নিজের শরীরে, সেসময় আরও বেশি করে চুসছিল অ্যাশলে। মিনিট দশ পরে নীতিশের মনে হল যেন একটা আগুনের গো্লা ফেটে পড়বে ওর শরীর থেকে। মুখ হা করে শ্বাস নিচ্ছিল নীতিশ। অ্যাশলের মুখ থেকে বিচ্যুত করতে গেল নিজেকে, ঠিক সেসময় অ্যাশলে চুষতে চুষতেই নীতিশের অন্ডকোষ ও পুরুষাঙ্গের সংযোগস্থলে একটা মোচড় দিল অদ্ভুত কায়দায়। মিনি জেমস বন্ড নিজেকে আর ধরে রাখতে পারল না। বিশাল একটা ঝটকা দিয়ে সাদা থকথকে অর্ধতরল ছিটকে বেরলো নীতিশের ভিতর থেকে অ্যাশলের মুখের ভিতর। হেলান দিয়ে বসলো নীতিশ আবার। শরীর থেকে সমস্ত শক্তি যেন বেরিয়ে গেছে। মাথা তুললো অ্যাশলে, মুখে সাদা বীর্য লেগে রয়েছে। কিন্তু থামলো না অ্যাশলে। টান মেরে খুলে ফেললো নিজের টপ, ঝাঁপিয়ে পড়লো নীতিশের উপর। অদ্ভুত কায়দায় চুষতে লাগলো ওর ঠোঁট, জিভ। নতুন ধরনের লাগছিল নীতিশের, অ্যাশলের মুখ থেকে নিজের বীর্যের গন্ধ ও স্বাদ পাচ্ছিল। নীতিশ বুঝতে পারল মেয়েটি এসব ব্যাপারে এক্সপার্ট, হয়ত বা ওর থেকেও বেশি। নীতিশের ঠোঁট, জিভ চুষতে চুষতে মেয়েটি হাত বোলাতে লাগলো ওর বুকে। শার্টের বাটন খুলতে লাগলো এক এক করে। ওর ঠোঁট নেমে এল নীতিশের গলায়, চুমু দিতে দিতে ছোট ছোট লাভ-বাইট দিতে লাগলো। নিপলে জিভ ঠেকিয়ে অ্যরিওলাতে এক-দুটো হাল্কা কামড় দিল। বুকের মধ্যদেশে গরম জিভ দিয়ে চাটতে লাগলো। নীতিশের হাত অ্যাশলের পিঠের উপর ঘুরে বেড়াচ্ছিল, এবার সেটা চলে এল অ্যাশলের হাফ কাপ ব্রা এর স্ট্র্যাপে, অভিজ্ঞ হাতে খুলে ফেললো সেটা। এতক্ষন অ্যাশলে আদর করছিল নীতিশকে, ব্রা খুলে যেতেই সোজা হয়ে বসলো। নীতিশের সামনে ভেসে উঠল একজোড়া পর্বত, মাথায় গোলাপী চূড়ার উপর একটি করে ছোট ঢিপি। চোখ ভরে দেখছিল নীতিশ, মুচকি হেসে চোখ টিপলো অ্যাশলে ওর দিকে তাকিয়ে- Wanna try these baby?নীতিশ ঝাঁপিয়ে পড়ল অ্যাশলের বুকের উপত্যকায়। মুখ গুঁজে দিল সেখানে। অ্যাশলের দুহাত নীতিশের মাথাকে শক্ত করে চেপে ধরলো নিজের বুকে। নীতিশ দুহাতে চটকাতে থাকলো অ্যাশলের স্তন। মুখ তুলে নীতিশ আক্রমন করল অ্যাশলের ডান স্তনে। জিভ দিয়ে নিপলে বোলাতে বোলাতে ডানহাত দিয়ে অ্যাশলের বামস্তনে পিষতে থাকল। পুরো ডানস্তন নিজের মুখের ভিতর পুরে জিভ বোলাতে লাগলো নিপলে, সাথে ছোট ছোট কামড়ও দিল অ্যরিওলাতে। একটু পরে একইভাবে এগোল বামস্তনে। ইতিমধ্যে অ্যাশলে হাত দিয়ে স্পর্শ করছিল ট্রাউজার থেকে বেরিয়ে থাকা নীতিশের নেতানো যৌনদন্ড। ধীরে ধীরে মিনি জেমস বন্ড এর যৌনদন্ড খাড়া হতে লাগলো। 007Mএবার অ্যাশলের থেকে নিজেকে সরিয়ে বড় দৌড়ের জন্য প্রস্তুত করলো। নিজেই খুলে ফেললো নিজের ট্রাউজার ও অন্তর্বাস। ওয়ালেট থেকে বের করল একটা কন্ডোম, যা সবসময়ই ওর স্টক-এ থাকে। ওয়ালেটটা রেখে দিল বেড-সাইড টেবিলে নিজের মোবাইল এর পাশে। নিজের উদ্যত পুরুষাঙ্গটি অ্যাশলের মুখের সামনে আসতেই অ্যাশলে আবার সেই সুন্দর ব্লোজব দিতে সুরু করলো। কিন্তু 007M এবার বেশিক্ষন করতে দিল না ওকে। অ্যাশলের মুখ থেকে বের করে নিজের পুরুষাঙ্গে কন্ডোম পরালো নীতিশ। টেনে শুইয়ে দিল অ্যাশলেকে। দুইপা ফাঁক করে পরনের জিনস শর্টস ও থং খুলে আনল। অ্যাশলের সুন্দরভাবে শেভ করা পিউবিক এরিয়ার দিকে তাকিয়ে নীতিশের মস্তিষ্কে মদের নেশার সাথে যৌনচেতনা মিশে একটা অন্যরকম ব্লেন্ড তৈরি করলো। চুমু খেল সে অ্যাশলের ক্লিটে। আহঃ করে উঠল অ্যাশলে। বহু অভিজ্ঞতা থেকে নীতিশ জানে এটাই মেয়েদের সেই অংশ যা তাদের যৌনউত্তেজনা জাগিয়ে তুলতে মুখ্য ভুমিকা পালন করে। চুমু খেল অ্যাশলের হাঁটুতে, থাইতে, পায়ে। জিভ দিয়ে অ্যাশলের ক্লিটে, যোনিপথের বাইরের পাপড়িতে বোলাতে লাগলো।অ্যাশলের শরীরটা ঝাঁকুনি দিয়ে উঠতে লাগলো, নানারকম শব্দাংশ, আদুরে শব্দ বের হয়ে আসছিলো অ্যাশলের মুখ থেকে। অ্যাশলের যোনিপথের রস বেরিয়ে এসে পরল নীতিশের জিভে, বিছানার চাদরে। দুই হাঁটুতে ভর দিয়ে সোজা হলো নীতিশ। আর দেরী না করে টেনে আনলো অ্যাশলের শরীর। দু’আঙুলে ভ্যাজাইনার মুখে থাকা পাপড়ি সরিয়ে পিচ্ছিল ছিদ্রের মুখে নিজের কন্ডোম পরিহিত পুরুষাঙ্গটি রাখল নীতিশ। আস্তে আস্তে চাপ দিতে থাকল। প্রত্যেক চাপের সাথে সাথে লুব্রিক্যন্ট মাখানো কন্ডোম পরা পুরুষাঙ্গটি একটু একটু করে অ্যাশলের ভিতরে যেতে থাকল। আর থাকতে না পেরে নীতিশ জোরে মোক্ষম চাপ দিল একটা। ওঁক করে আওয়াজ বেরিয়ে এল অ্যাশলের মুখ থেকে। নীতিশের পুরুষদন্ডটি আমূল ঢুকে গেছে অ্যাশলের শরীরে। কয়েক সেকেন্ড এইভাবে স্থির থেকে নীতিশ শুরু করলো। নীতিশের প্রত্যেকটা আঘাতের সাথে অ্যাশলের মুখ থেকে নানারকম শব্দ বেরিয়ে আসছিল। ক্রমশ তীব্র হচ্ছিল নীতিশের আঘাত, অ্যাশলের আরও গভীরে যেতে চাইছিল। একটা রিদমে অ্যাশলের শরীরের উপর নীতিশের শরীর ওঠানামা করছিলো, এর সাথে নীতিশ নিজের ঠোঁট দিয়ে অ্যাশলের নিপল চেপে ধরতে লাগলো, জিভ বোলাতে লাগলো নিপলে। চুমু খেতে লাগলো অ্যাশলের পর্বতাকার স্তনে, তার উপত্যকায়, গলার ভাঁজে, ঠোঁটে। অ্যাশলে নীতিশের কাঁধে একটা পা তুলে দিল। নীতিশ আরও গভীরতা পেল। অ্যাশলেও তার ভ্যাজাইনা দিয়ে কামড়ে ধরতে লাগলো নীতিশের যৌনদন্ড। একটু পরে অ্যাশলে শক্ত করে নিজের চার হাতপা দিয়ে জড়িয়ে ধরল নীতিশকে, নিজের শরীরের সাথে নীতিশকে আটকে নিয়ে উলটে দিল ওকে। নীতিশকে চিৎ করে শুইয়ে দিয়ে অ্যাশলে পারপেন্ডিকুলার হয়ে বসল ওর উপর। তখনও নীতিশের যৌনাঙ্গ অ্যাশলের শরীরে আমূল গাঁথা। নীতিশের উপরে বসে অ্যাশলে নিজের শরীরকে উপর নিচে চালাতে লাগলো। ওর দুই হাত নীতিশের বুকের উপর রাখা। নীতিশ দু’হাতে আকড়ে ধরল অ্যাশলের ঝুলন্ত দুই স্তন কে, ম্যসাজ করার মত করে চটকাতে লাগলো, চুমকুড়ি কেটে দিল নিপলে। আর তাতে উৎসাহিত (বা উত্তেজিত) হয়ে অ্যাশলে গতিবেগ বাড়াল। তার সাথে ওর মুখ থেকে আর্তনাদের মত বেরচ্ছিল নানান শব্দ। মিনিট দশেক পরে নীতিশ বুঝতে পারলো সময় হয়ে আসছে, আর বেশিক্ষন ধরে রাখতে পারবে না সে। মাঝে মাঝে অ্যাশলে তার ভ্যাজাইনা দিয়ে কামড়ে ধরছিল নীতিশের পেনিস, তাতে ওর নিজেকে ধরে রাখা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ছিল। এটাও নীতিশ বুঝল যে অ্যালকোহলের কৃপায় ও দ্বিতীয় বার বলে সে এতক্ষন ধ’রে রাখতে পেরেছে, নাহলে অনেক আগেই তার ইজাক্যুলেশন হয়ে যাবার কথা। অ্যাশলের দিকে তাকিয়ে দেখল তুমুল গতিবেগে অ্যাশলে তার যৌনদন্ডকে মর্দন করে যাচ্ছে। এসি চলা সত্যেও ওদের শরীর ঘামে ভিজে গেছে। আরও মিনিট তিন-চার পরে কেমন যেন গুঙিয়ে উঠল অ্যাশলে, দু’হাতে খামচে ধরল নিতীশের কাঁধ, সাথে সাথে নীতিশও সাড়া দিল। ওর শরীরটা ঝটকা মেরে উঠলো কাটা ছাগলের মত। অ্যাশলের ভিতরে ওর পুরুষাঙ্গ ফুলে ফুলে উঠতে লাগলো। বিপুল বেগে তরল বের হয়ে নীতিশের কন্ডোমের সামনের অংশ ভরে গেল। সেই সাথে সে অনুভব করল, তার কন্ডোম পরা পুরুষাঙ্গের চতুর্ধার দিয়ে ফোয়ারার মতো তরল বন্যার মতো ছিটকে উঠছে। আর্তনাদ করে উঠল অ্যাশলে তার মাতৃভাষায়। তার হাতের নখ বসে গেছে নীতিশের কাঁধে। শরীরটা ছেড়ে দিল নীতিশ নরম বিছানায়। আর তার বুকের উপর গড়িয়ে পরল অ্যাশলে তার পীনোন্নত বুক নিয়ে। দুইহাতে জড়িয়ে নিল নীতিশ ওকে, নিজের বুক দিয়ে অনুভব করতে লাগলো অ্যাশলের স্তনদুটি। ওর উদ্যত পেনিস সংকুচিত হয়ে বেরিয়ে এল অ্যাশলের শরীর থেকে। নীতিশের কোমর, উরুসন্ধি ও পেটের নিচের অংশ ভিজে গেছে অ্যাশলের শরীর থেকে বেরোনো তরলে। কিন্তু তা পরিস্কার করার ইচ্ছে করছিল না ওর। পুরো শরীরটা কেমন একটা আবেশের মধ্যে চলে যাচ্ছিল। বুকের উপর শুয়ে থাকা অ্যাশলে কানের কাছে চুমু খেল, কানের লতি কামড়ে ধরল, নীতিশের মুখটা টেনে এনে গভীর, তীব্র চুমু খেল অনেকক্ষন ধরে। ক্লান্ত নীতিশের চোখ বুঁজে এল। আবেশে অ্যাশলেকে জড়িয়ে ধরে গভীর ঘুমে তলিয়ে গেল নীতিশ।
সকালবেলায় চোখ খুলে মিনি জেমস বন্ড যা যা আবিষ্কার করলো তা এইরকমঃ
১| অ্যাশলে ভ্যানিস।
২| বেড-সাইড টেবলে রাখা মোবাইল এবং ওয়ালেট উধাও, যে ওয়ালেটের মধ্যে ক্রেডিট কার্ড, এটিএম কার্ড, আইডি কার্ড, কিছু জরুরি কাগজপত্র ছাড়াও ৩৫০ ইউএস ডলারের হিসাবে ভারতীয় টাকা ছিল।
৩| তার ট্রাভেলার্স ব্যাগ, যার মধ্যে ল্যাপটপ, মোবাইল চার্জার, ইন্টারনেট ডেটাকার্ড, জামাকাপড়, রিটার্ন টিকিট ও প্রজেক্ট ডকুমেন্টস ছিল, সেটিও ভ্যানিস হয়ে গেছে অ্যাশলের সাথে সাথে।

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*