Monday, June 27, 2011

কাজের ছেলের ইজ্জত নিয়ে ছিনিমিনি খেলল গৃহবধু


দক্ষিন কলকাতার অভিজাত অঞ্চলের একটি বাড়ি। বাড়ির কর্তা বিকাশবাবু ব্যাঙ্ক অফিসার। গৃহবধুর নাম অঞ্জলী। বয়স পয়ত্রিশ। ভারী সুন্দর চেহারাটি। লম্বা, ফর্সা, সুগঠিতা, মুখ জোড়া লাবন্য, একটা নিষ্পাপ সরলতার ছোঁয়া। ছোট্ট পরিবার - স্বামী, স্ত্রী আর তাদের দুই ছেলেমেয়ে। ছেলেমেয়েরা ছোট। মেয়ে পড়ে ক্লাস সিক্সে, ছেলে ওয়ানে।

বাড়ির রান্না অঞ্জলী নিজেই করে, অন্য সবকিছু করবার জন্য একটি ছেলে আছে, তার নাম মন্টু, বয়স হবে ১৮। ঘর ঝাঁড়পোছ, কাপড় কাচা, বাসন মাজা, টুকিটাকি দরকারে এটা সেটা দোকান থেকে এনে দেওয়া - এ সব কিছুই ও করে। ওদের বাড়ির সার্ভেন্ট কোয়ার্টার এ মন্টু থাকে। অঞ্জলী ওকে কাজের লোকের মতন ভাবেই না, বাড়ির ছেলের মতন করেই রাখে। খুব ভালোবাসে মন্টুর মিষ্টি সরল স্বভাবটার জন্য।


মন্টু থাকায় অঞ্জলীর খুব সুবিধা। রান্না করবার সময়তে হাতে হাতে জিনিস এগিয়ে দেয়, তরকারী কুটে দেয়। কাজকর্ম হয়ে গেলে মন্টুর সাথে গল্প করে সময়টা সুন্দর কাটে অঞ্জলীর। কখনো একা লাগেনা। মন্টুর ও ভীষণ ভালো লাগে অঞ্জলীকে। ‘মাসী তুমি’ বলেই সম্বোধন করে। এত সুন্দর ব্যবহার, এত স্নেহ ও কোথায় পাবে ? মন্টু ঠিকই করে ফেলেছে যে এ বাড়ি ছেড়ে ও অন্য কথাও কাজ করবেনা।


মন্টুর তখন যা বয়স, সে সময়তে নারীশরীর নিয়ে আগ্রহ, কৌতুহল - এ সব থাকাটাই স্বাভাবিক। সারাদিনের কাজ সেরে দুপুরে বা রাত্তিরে যখন শুতে আসতো, তখন গ্রামের পুকুর পাড়ের দৃশ্যগুলি ওর মনে পড়ত। অল্প বয়সী মেয়েরা, বউরা পুকুরে চান করে পাড়ে দাঁড়িয়ে কাপড় ছাড়ত আর ও লুকিয়ে লুকিয়ে দেখত। এসব ভাবতে ভাবতে ওর মধ্যে উত্তেজনার জোয়ার চলে আসতো। কিছুদিন যাবার পর গ্রামের স্মৃতিগুলি আসতে আসতে আবছা হয়ে আসতে লাগলো। এক আধ সময়তে অবচেতন মনেই ও অঞ্জলীকে এই ভাবে দ্যাখার কথা ভাবতো। ভাবলেই লজ্জা, উত্তেজনায় ওর কান মাথা গরম হয়ে উঠত। ছি, ছি - যার বাড়িতে ও থাকে, খায়, যিনি ওর ভরণ পোষণের ভার নিয়েছেন, তাকে নিয়ে এহেন অবৈধ ইচ্ছা ওর না আসাই উচিত। নিজের সংযম বজায় রেখে কুচিন্তা থেকে নিরস্ত হত, কিন্তু অবচেতন মনকে তো বাঁধনে বাঁধা যায়না। জানিনা, ঈশ্বর মন্টুর অবচেতন বাসনা জানতে পেরেছিলেন কিনা। যে ঘটনাটি এখন লিখতে চলেছি, সেটি মন্টু কাজে লাগবার প্রায় বছর খানেক পরে ঘটেছিলো।


অঞ্জলী বাড়ির কাজকর্ম সেরে একটু বেলাবেলি বেরিয়েছে। ব্যাঙ্ক এ যাবে, আরো কি কি জানি কাজ আছে। দিনটা বেশ মেঘলা ছিল, মাঝে মাঝে দমকা হাওয়া বইছিলো। কোনো রিক্সা না পেয়ে, আর আকাশ অন্ধকার করে আসছে দেখে অঞ্জলী তাড়াতাড়ি পা বাড়িয়েছিল, কিন্তু শেষরক্ষা করতে পারেনি। বাড়ির কাছাকাছি আসতেই ঝম ঝম করে বৃষ্টি নামলো। ছাতা খুলবার আগেই বৃষ্টির তোড় ওকে ভিজিয়ে দিলো, আর ওরকম দমকা হাওয়ায় ছাতায় কি হবে? যখন বাড়ি ঢুকলো, তখন আপাদমস্তক চুপচুপে ভিজে। গা, মাথা, হাতের ছাতা - সব কিছু থেকে জল গড়াচ্ছে।

মন্টু দেখেই বলল “এ কি মাসী ? তুমি একদম ভিজে গেছো যে -”

অঞ্জলী হাসলো - “ভিজেছি মানে, একেবারে চান করে এসেছি বল। অবস্থা দ্যাখ।”


মন্টু তাকালো। গায়ের সাথে শাড়ি, ব্লাউজ সব ভিজে লেপ্টে রয়েছে। ভিজে ব্লাউজ আর ব্রার আড়ালে অঞ্জলীর সুগঠিত স্তনযুগল সগর্বে নিজেদের উপস্থিতি ঘোষণা করছে। মন্টু একটু লজ্জা পেলো সোজাসুজি তাকাতে। চোখ সরিয়ে মাথা নিচু করে ফেললো। অঞ্জলী ছাতাটা মন্টুর হাতে দিয়ে এগিয়ে বাড়ির ভিতরে এগিয়ে গেলো। সাহস করে এবার ও অঞ্জলীকে পিছন থেকে দেখলো। অঞ্জলীর নিতম্বের সাথে শাড়ি, সায়া সব সেঁটে আছে। নিতম্বের জোড়াটুকুও বোঝা যাচ্ছিলো ভিজে শাড়ি, শায়ার নিচে। মন্টু আচমকা ওর শরীরে একটা গভীর উত্তাপ অনুভব করলো। অঞ্জলী ঘরে ঢুকে গেলো আর মন্টু বারান্দায় এসে ভিজে ছাতাটা মেলে দিলো।


- “বারান্দা থেকে আমার তোয়ালেটা একটু নিয়ে আয় না।” অঞ্জলী ঘরের থেকেই হাঁক পাড়লো। মন্টু তোয়ালেটা এনে দিয়ে নিজের কাজে গেলো। অঞ্জলী আগে মাথা, মুখ শুকনো করে মুছে নিলো। শাড়িটা এখনি খুলতে হবে, কিন্তু লক্ষ্য করলো জানলার পর্দা টানা নেই।

- “আরে, কোথায় গেলি? জানলার পর্দাগুলি একটু টেনে দে।”

মন্টু আবার অঞ্জলীর শোয়ার ঘরে এলো। পর্দাগুলি টানার মধ্যেই অঞ্জলী ওর ভিজে শাড়িটা গা থেকে খুলে মাটিতে ফেললো। ঘরে মন্টু আছে, কিন্তু অঞ্জলীর এতে বিন্দুমাত্র ভ্রুক্ষেপ নেই। আগেও এক আধবার শায়া ব্লাউজ পরা অবস্থায় মন্টু অঞ্জলীকে দেখেছে, কিন্তু ভিজে গায়ে ওকে দেখে মন্টুর যৌন অনুভূতিগুলি জেগে উঠছিলো। ও চেষ্টা করছিলো না তাকাতে।


অঞ্জলী মন্টুকে বর্ণনা দিচ্ছিলো কখন, কোথায় বৃষ্টিটা নামলো, এইসব।

-“তুমি কোথাও দাঁড়িয়ে গেলে না কেন মাসী ?”
-“একটা দোকানের নীচে দাঁড়িয়েছিলাম, বৃষ্টিটা একটু ধরতে আবার বেরিয়েছি, তখন একেবারে ঝমাঝম বৃষ্টি শুরু হলো। আর ছাতাতে কোনো কাজ হয়না এরকম বৃষ্টিতে।”

মন্টু লক্ষ্য করলো ওর সাথে কথার ফাঁকে ফাঁকে অঞ্জলী ওর দিকে পিছন ফিরে ব্লাউজের বোতামগুলি খুলছে। মন্টুর বিশ্বাস হলনা চোখের সামনে এমনটা দেখবে। মন্টু চোখ সরিয়ে নিতে নিতেও কথার ফাঁকে তাকাচ্ছিল অঞ্জলীর দিকে। ভিজে ব্লাউজটা এমনভাবে হাতের সাথে সেঁটে গিয়েছিলো যে হাত থেকে খুলতে অঞ্জলীকে বেশ বেগ পেতে হলো। শেষমেষ ভিজে ব্লাউজটা খুলে মাটিতে ফেলে দিলো।


এই প্রথম মন্টু অঞ্জলীকে শায়া আর ব্রা পরা অবস্থায় দেখলো। মাসী কি ব্রা’ও খুলবে নাকি? মন্টুর মনের মধ্যে এই প্রশ্নটা ঘুরপাক খেতে খেতে ওর যৌন উত্তেজনা প্রবলভাবে ওকে বিদ্ধ করলো। ওর সারা শরীরে ঝড় বইতে আরম্ভ করলো যখন অঞ্জলী সত্যিই হাত দুটো পিঠের দিকে নিয়ে এলো। অবিশ্বাস্য!!! অঞ্জলী ব্রা’র হুকটা খোলার চেষ্টা করলো আর মন্টুর শরীরে তখন আগুন জ্বলছে, বুকের মধ্যে হাতুড়ি পিটে চলেছে কেউ - ভয়ে নাকি নারীশরীরের অনাবৃত সৌন্দর্যের হাতছানিতে? সেটা বোঝার মতন বয়স তো আর মন্টুর হয়নি।


হুক খুলে কাঁধ থেকে স্ট্র্যাপটা নামিয়ে নিলো অঞ্জলী। মাটিতে ফেলবার আগে সদ্য খুলে নেওয়া ব্রা স্তনবৃন্তের উপরে চেপে রেখে অঞ্জলী তোয়ালেটা আর একবার নিলো। বুকে তোয়ালে জড়িয়ে নিয়ে ব্রা টা মাটিতে ফেলে দিলো।


মন্টুর সাথে কথা বলতে বলতে অঞ্জলী বাঁ পাশ ফিরে গা মুছছিল। বগল, পিঠ, গা মোছার সময়ে বারবার স্তনের ওপর থেকে তোয়ালে সরে যাচ্ছিলো। মন্টু সাহস করে এক আধবার তাকাতে গিয়ে লজ্জায়, বিস্ময়ে, নিজের ভিতরকার উত্তাপ উত্তেজনার চরমে দেখতে পেয়েছে ফর্সা পরিপুষ্ট স্তনের মধ্যমণিতে বাদামী রঙের বৃত্ত, যার শিখরে মুকুটের মতন শোভা পাচ্ছে ফুলের কুঁড়ির চেয়েও সুন্দর স্তনবৃন্ত। মনিবপত্নীর অমূল্য ঐশ্বর্য উপভোগ করবার অধিকার একমাত্র মনিবের। সে সামান্য ভৃত্য, তার সে অধিকার নেই, তাই চোখ সরিয়ে নিতে হচ্ছিলো বারবার। কিন্তু এ সৌন্দর্য স্বর্গীয়, নিষ্পাপ, ঈশ্বরের দেওয়া দান, নয়ন ভরে দেখার মতন সম্পদ। তাই চোখ সরিয়েও বারবার ইচ্ছা হচ্ছিলো অঞ্জলীর সাথে কথা বলবার ফাঁকে এক এক ঝলক তাকাতে।


অঞ্জলী একটু পিছনে ফিরলো। হঠাত কেন জানি মন্টুর মনে হলো অঞ্জলী কি এবার শায়া খুলবে? যাঃ, সেটা কি করে সম্ভব? মন্টু এ কথা ভাবতে ভাবতেই অঞ্জলী বুকের ওপর থেকে তোয়ালেটা সরিয়ে নিয়ে কোমরে জড়াল। ওর মনে হলো অঞ্জলীর আঙ্গুলগুলি শায়ার দড়ির উপরে। মন্টু শিউরে উঠলো। ও যা ভাবছিলো তাই ঘটতে চলেছে? কথার ফাঁকে অঞ্জলী সত্যিই শায়ার গিঁট খুলে নিলো। ভিজে শায়া সহজে নামলো না। তোয়ালের নিচে হাত ঢুকিয়ে অঞ্জলী নামিয়ে নিলো ওর পরনের শেষ বসনটুকু। নিতম্ব আর পা পেরিয়ে পায়ের কাছে পরে গেলো কালো রঙের একটা ভিজে দলা হয়ে। মন্টুর শরীর দিয়ে আগুন বেরোচ্ছে। ওর যৌনাঙ্গ যাবতীয় বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে নিজের ঔদ্ধত্য প্রকাশ করছে ওর পরনের পাজামার ভিতর দিয়ে।


কথা বলতে বলতে শরীরের নিম্নাঙ্গ মুছে চলেছে অঞ্জলী। কখনো পাশ ফিরে, কখনো বা পিছন ফিরে। সাহস করে বারবার ওর দিকে তাকিয়েই কথা বলছিলো মন্টু। দৃষ্টি বিনিময়ও হয়েছে, অঞ্জলী স্বাভাবিকভাবেই নিজের কাজটুকু করে গেছে। ঈশ্বরের আশীর্বাদপুষ্ট উন্মুক্ত স্তনযুগল, অনাবৃত নিতম্ব, উরু, ঘন কালো অরণ্যের আড়ালে তাঁর একান্ত গোপনীয় নারীচিহ্নের প্রতীক - কোনো কিছুই বাদ থাকেনি মন্টুর দৃষ্টিতে। অন্তরের গভীরে ও পরিপূর্ণভাবে উপভোগ করেছে মনিবের স্ত্রীর রূপসৌন্দর্য। প্রবল উত্তেজনার ঝড় এলোমেলো করে দিচ্ছে ওর চিন্তা, নীতিবোধ সব কিছু।


গা মুছে বিনা সংকোচে ন্যাংটো গায়ে ওর হাতে তোয়ালেটা এগিয়ে দিয়েছে অঞ্জলী -“মেলে দিয়ে আয়।” মন্টু অপেক্ষা করতে পারেনি। আজ্ঞাবাহী হয়ে তোয়ালে হাতে দৌড়ে চলে গিয়েছিলো বারান্দায়।

আরো সাত বছর পরের একটি ঘটনা।

অঞ্জলীর মেয়ে তখন কলেজে পড়ে। ছেলে ক্লাস এইটে। মন্টুর বিয়ে হয়ে গেছে, ওর অবস্থাও একটু ফিরেছে, দেশের বাড়িতেই থাকে। হঠাত করেই বিকাশবাবু দু বছরের জন্য বদলি হলেন রাঁচিতে, নিজের পদোন্নতির পর। ছেলেমেয়েদের পড়াশুনার যাতে ক্ষতি না হয়, সেজন্য অঞ্জলী কলকাতার বাড়িতেই রয়ে যাওয়া ঠিক করে ওদের নিয়ে। বিকাশবাবু একাই চলে যান নতুন কর্মস্থলে।


আবার খোঁজ পরে মন্টুর। অঞ্জলীর অনুরোধে মন্টু রাজী হয় আবার কাজ করতে। অঞ্জলী জিজ্ঞেস করে, “পারবি বৌকে ছেড়ে থাকতে?” মন্টু বলে “পারবো। তুমি একটু ছুটি দিলে গিয়ে দেখে আসবো।”


বিকাশবাবু রওনা হবার সময় যাবতীয় দায়িত্ব মন্টু একা হাতে সামলেছে - জিনিসপত্র প্যাক করা, ট্রাকে করে পাঠানো - এ সব কিছু। বিকাশবাবু চলে যেতে বাড়ির দায়িত্বও হাসিমুখে পালন করেছে। অঞ্জলীকে এতটুকু কষ্ট পেতে হয়নি।


দিন দুয়েকের ছুটি ছিল। ছেলেমেয়ে গেছে দিদিমার কাছে। বাড়িতে অঞ্জলী আর মন্টু।


সন্ধ্যা হয়ে গেছে, অঞ্জলী বারান্দায় বসে। মন্টু বোধ হয় ভিতরে কাজ করছিলো। সারাদিন ভ্যাপসা গরমের পর আকাশে মেঘ করে এসেছিলো। বিদ্যুতের ঝলকানি আর গুরগুর শব্দ। যদি একটু বৃষ্টি হয়। বিদ্যুতের ঝলকানি ক্রমশঃ বেড়ে চললো, শুরু হলো ঝড়। নিমেষের মধ্যে চারিদিকের আলো নিভে গেলো, চলতে লাগলো ঝড়ের তাণ্ডব। মন্টু ছুটে এসেছে জানলাগুলি বন্ধ করতে। জানলা বন্ধ করে বারান্দায় মোমবাতির আলো ধরাবার চেষ্টা করেছে, কিন্তু অসফল হয়েছে। অঞ্জলী বললো “থাক, অন্ধকারই ভালো।”


মুষলধারে বৃষ্টি পরছে। অঞ্জলী একা দাঁড়িয়ে, বারান্দায় বৃষ্টির ছাট আসছে, ও ভিজছে। মন্টু বললো “কি করছে মাসী, ভিজছো কেন?” অঞ্জলী হাসলো। বললো “একটা পুরনো কথা খুব মনে হচ্ছে।”


-“কি?”

-“মনে আছে? একদিন বৃষ্টিতে ভিজে বাড়ি ফিরেছিলাম। ঘরে এসে তোর সাথে গল্প করতে করতে - কেমন বিনা লজ্জায় সব খুলে ফেলে -” কথাগুলি শেষ করতে পারছিলনা অঞ্জলী। ওর গলা কেঁপে যাচ্ছিলো।

মন্টু অঞ্জলীর পাশে এসে দাঁড়ালো। অঞ্জলীকে কাছে টেনে নিয়ে ওর ঠোঁটের সাথে নিজের ঠোঁটের মিলন ঘটালো। আকাশের মেঘের বিদ্যুতের খেলার সাথে সাথে নিজেদের শরীরের বিদ্যুত খেলে যেতে লাগলো। অঞ্জলী ভয় পেলো। কেউ দেখছেনা তো? বাইরে তখনো নিশ্ছিদ্র অন্ধকার আর প্রবল বর্ষনে বাইরের সব কিছু ঝাঁপসা। চুম্বনের আকর্ষণে আর নিবিড়তার গভীর আবেগে অঞ্জলী আর মন্টু পরস্পরকে আলিঙ্গন করলো। এ আলিঙ্গন, এ বাঁধনের মধ্যেই ওরা হারিয়ে যেতে চাইলো। দুটি উপসী দেহের দুর্বার আকর্ষণে সমাজের নিয়মকানুন, বয়সের ব্যবধান, সামাজিক প্রতিষ্ঠার ব্যবধান, মনিব-ভৃত্যের ব্যবধান - সব যেন শিথিল হয়ে গেলো। বৃষ্টিধারা চুম্বন আর স্পর্শের নেশায় মত্ত দুটি দেহকে একসঙ্গে ভিজিয়ে দিলো।


অঞ্জলী মন্টুকে নিয়ে শোবার ঘরে এলো। তখনো নিশ্ছিদ্র অন্ধকার। দুজনেই তাদের সিক্ত বসনগুলি এক এক করে খুলে ফেলেছে। আদর করে গা মুছিয়ে দিয়েছে দুজনেই দুজনকে। মন্টু আদর করেছে নারীদেহের কোমলতার আর অঞ্জলী আদর করেছে মন্টুর পুরুষ দেহের লৌহকঠিনতার। এ স্পর্শের আনন্দ থেকে দুজনেই কতদিন বঞ্চিত।


মন্টু স্পর্শ করে চলেছে অঞ্জলীর পরিপূর্ণ দেহ। ওর মাথাটা গুঁজে দিয়েছে স্তনযুগলের মধ্যেখানে, কখনো বা চুম্বনে পরিশিক্ত করে চলেছে মনিবের স্ত্রীর স্তনবৃন্তে আর হাত বুলিয়ে চলেছে ওর নিতম্বের অনাবৃত চামড়ার মসৃনতায়। আদরের মাঝেই খুঁজে নিয়েছে ঘন অরণ্যের ফাঁকে নারীচিহ্নের দ্বারের গভীর গোপন অন্তঃপুর, সাত বছর আগে যার এক ঝলক দর্শনটুকুই শুধু ও পেয়েছিলো। অঞ্জলীর হাতের মুঠোয় যখন মন্টুর উত্তপ্ত কঠিনতা ধরা, মন্টুর অঙ্গুলিতে তখন অঞ্জলীর গভীরের উত্তাপগলা সিক্ততা। শরীরের উন্মত্ততায় ওরা আর না পেরে চলে এসেছে বিছানায়। তারপর দুই নগ্ন শরীর পাগলের মতন চুম্বনে, আলিঙ্গনে, নিবিড় স্পর্শে গোটা বিছানা ওলটপালট করে দিয়েছে। বিকাশবাবুর রেখে যাওয়া একটা কনডমের প্যাকেট কি ভাগ্যিস ছিল। অঞ্জলী উত্তেজনায় তার দুই পা ফাঁক করে মেলে ধরেছে, তখনই মন্টু তার কঠিন পুরুষাঙ্গ আস্তে আস্তে প্রবেশ করিয়েছে।


-“মন্টু ভীষণ ভালো লাগছে - কি সুন্দর করে তুই - আর একটু - হ্যা এইতো সোনা, লক্ষী আমার। আমি পারছিনা মন্টু বিশ্বাস কর্, শরীরের খিদে না মিটিয়ে আমি বাঁচতে পারবনা, মরে যাবো।”

-“এরকম বলোনা মাসী, তোমার কষ্ট হলে আমায় বলো।”

দুটি শরীর তখন চরম উন্মত্ততার দ্বারপ্রান্তে। প্রথমে ধীরে, তারপর জোরে, আরো জোরে। শরীরের ওঠানামার খেলা হয়ে চলেছে ছন্দে ছন্দে তালে তালে। নিশ্বাস পড়ছে জোরে জোরে। একসময় মন্টুর বীর্যস্রোতের বাঁধ ভেঙ্গে গেলো। অঞ্জলীও তখন উত্তেজনার চরম শিখরে। এত আনন্দ ও কোনদিনও কি পেয়েছে?


সেদিন আর খাওয়া হয়নি ওদের। আলো এসেছিলো অনেক পরে। দুই নগ্ন শরীর পরস্পরকে আঁকড়ে রেখে কখন জানি ঘুমিয়ে পড়েছিলো। ঝড় কখন থেমে গেছে আর ভোরের আলো ফুটে উঠেছে।


সেটা ছিল প্রথম মিলন। যখনি অঞ্জলীর ইচ্ছা হয়েছে, সে কাজ সেরে স্নানে যাবার আগেই হোক, কি নির্জন দুপুরেই হোক - মন্টু ওর সব ইচ্ছা পূরণ করেছে। বাধ্য ভৃত্যের মতন।

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*