Thursday, June 16, 2011

Collected Jokes ( বাংলা জোকস)

১। এক লোক তার বাসার কাজের মেয়ের সাথে সেক্স করার সময় বলছে, "তুমি আমার বউ এর চেয়েও অনেক মিষ্টি।"
কাজের মেয়ে, "আমি জানি, ড্রাইভারও তাই বলে।"

২। মেয়েদের টি-শার্ট এ মজার কি লেখা থাকতে পারে?
Excuse me, আমার face উপরে।

৩। আঙ্গুল থেকে রক্ত টানার পর নার্স রোগীর আঙ্গুল মুখে ঢুকিয়ে চুসে দিল......
রোগী আনন্দে নাচতে লাগল......
নার্সঃ কি হল আপনি নাচছেন কেন?
রোগীঃ আমার পরবর্তী টেস্ট হচ্ছে Urine test.


৪। জন্মদিনের পার্টিতে এক তরুণী এক ভদ্রলোককে জিজ্ঞেস করল,
তরুণীঃ আঙ্কেল, প্রস্রাব করার জায়গাটা দেখাবেন দয়া করে?
ভদ্রলোকঃ অসভ্য মেয়ে, প্রথমে তুমি দেখাও।

৫। উকিলঃ আপনি আপনার বউকে কেন divorce দিতে চান?
স্বামীঃ ও আমাকে বিছানায় সুখি করতে পারেনা।
উকিলঃ সারা এলাকা খুসি শুধু উনি খুসি না।

৬। এক ভদ্রলোক তার স্ত্রীকে নিয়ে ট্যাক্সিতে করে যাচ্ছিলেন। রাস্তায় signal এ থামলে কিছু খারাপ মেয়ে এসে তার স্ত্রীকে বলল, দিদি, এ লোক কিন্তু টাকা নিয়ে অনেক ঝামেলা করে, আগেই মিটিয়ে নেবেন।

৭। এক কাপ চা আর একটি মেয়ের মাঝে মিলগুলো,
দুটিই আমরা বিছানায় পছন্দ করি,
দুটিই আমরা গরম অবস্থায় বেশী পছন্দ করি,
দুধ ছাড়া কোনটাই ভালো লাগেনা।

৮। এক দম্পতি এসেছে ডাক্তারের কাছে, স্বামী বয়স্ক, স্ত্রী অপেক্ষাকৃত তরুনী, তাদের সমস্যা হচ্ছে বাচ্চা হচ্ছে না। ডাক্তার স্ত্রীর কিছু টেস্ট করল। স্বামীকে বলল, আপনার sperm test করতে হবে। তাকে একটা specimen cup দেয়া হল আর বলল, এটাতে sperm(বীর্য) নিয়ে আসবেন।
পরদিন লোকটা খালি cup নিয়ে আসছে।
ডাক্তার বলল, খালি কেন?
লোকটা বলল, বাসায় গিয়ে বাম হাতে অনেক চেষ্টা করলাম, হলনা। ভাবলাম ডান হাতে try করি, তাও হলনা।
-এটা হতে পারে, আপনার বয়স তো আর কম হলনা, তো সাহায্য করার জন্যে বউকে ডাকতে পারতেন।
-ডেকেছি তো, সে হাত দিয়ে চেষ্টা করল হলনা, মুখ দিয়ে করল তাও হলনা।
-হয় হয় এমন হয়, তো তখন কি করলেন?
-তখন বউ এর বান্ধবি কে ডাকলাম।
-বউ এর বান্ধবি???
-হ্যা, কিন্তু সেও পারলনা।
-সেও পারলনা? ডাক্তারের ভ্রূ কুচকে গেছে...
-এরপর আমার বন্ধু এল, সেও চেষ্টা করে পারলোনা।
-ডাক্তার অবাক, বলেন কি, আপনার দোস্ত, মানে একটা ছেলে?
-তবে আর বলছি কি? যাক সারা রাতে পারলাম না। সকালে হাসপাতালে এলাম, আপনার নার্স কে বললাম সাহায্য করতে।
-আমার নার্স কে???
-হ্যা সেও চেষ্টা করে পারেনাই।
-আপনি তো দেখি সবাইকে দিয়েই try করছেন?
-হ্যা শুধু আপনি বাকী আছেন।
-আআআআমি? ডাক্তার তোতলাচ্ছে...
-হ্যা দেখেন তো চেষ্টা করে cup টার ঢাকনাটা খুলতে পারেন কিনা?

৯।
এক তরুন ট্যুরিস্ট গেছে চীন দেশে বেড়াতে। একদিন সে ঘুরতে ঘুবতে শহর ছেড়ে একেবারে গ্রাম্য এলাকায় চলে গেছে। এটা ওটা দেখতে দেখতে কখন যে দিন গড়িয়ে সন্ধ্যা হয়েছে তা সে লক্ষ্য করেনি। যখন তার খেয়াল হলো, ততক্ষনে শহরে ফেরার সব যানবাহন চলে গেছে। রাতে কোথায় থাকবে এসব ভাবতে ভাবতে একটু সামনে সে দেখতে পেল এক প্রাচীন দূর্গের মতো বাড়ি। সেখানে গিয়ে দরজায় টোকা দিল সে। দরজা খুলল এক বৃদ্ধ লোক। লোকটার লম্বা ঝুঁটি বাঁধা চুল, থুতনিতে লম্বা এক গোছা দাড়ি, নাকের নিচে পুরু গোঁফ, চোখের ওপরে মোটা ভুরু, সব পেকে ধব ধবে শাদা।
তরুন তাকে অনেক কষ্টে বোঝালো সে রাতটুকুর জন্য বৃদ্ধর বাড়িতে আশ্রয় চায়। বৃদ্ধ তাকে জানালো, সে সানন্দেই তরুনকে আশ্রয় দেবে। এমনকি রাতের খাবারটাও বিনে পয়সায় খাওয়াবে। তবে তার একটাই শর্ত - ঘরে তার এক যুবতি মেয়ে আছে। তার সাথে তরুন কোন লটর পটর মানে অনৈতিক কাজ করতে পারবে না। যদি সে তেমন কিছু করে তবে তাকে ভয়াবহ তিনটি চৈনিক শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। তরুন বৃদ্ধকে আশ্বস্ত করলো, কোন ধরনের অনৈতিক কাজ সে করবে না।
কিন্তু রাতে খাবার টেবিলে বৃদ্ধর মেয়েকে দেখে তরুনের মাথায় মোটামুটি আগুন ধরে গেল। বারে বারে বাহ! কি চমৎকার লাল টুক টুক চেহারা, কি অনন্য ফিগার! এমন মেয়ে দেখলে যে কোন পুরুষের মন টলে উঠতে বাধ্য। তরুন কিছুতেই সে মেয়ের দিক থেকে চোখ ফিরাতে পারছিল না। আবার বৃদ্ধের সেই ভয়াবহ শাস্তির কথা মনে করে সে কিছু করতেও পারছিল না।
রাতে তরুনের ঘুমানোর জায়গা হলো দুই তলার এক ঘরে। সে ঘরের বিছানার পায়ের ধারে অনেক বড় জানালা। গরাদ বিহীন সে জানালা দিয়ে শন শন বাতাস বয়। সে বাতাসের আরামে তরুন বিছানায় শুয়ে পড়তেই ঘুমিয়ে গেল। অনেক রাতে তার ঘুম ভেঙে গেল, শরীরের ওপর প্রচন্ড এক চাপ অনুভব করায়। আবছা আলোয় সে চোখ মেলে তাকাতেই দেখতে পেল, বৃদ্ধের সেই রূপসী মেয়ে তার শরীরের ওপর জেঁকে বসেছে।
তরুন কিছু বুঝে ওঠার আগেই মেয়েটি স্বতস্ফুর্ত ভাবে তার কাজ করা শুরু করলো। যেন মেয়েটি প্রধান সেতার বাদক আর ছেলেটি তার তবলচি। সেতারের সাথে সঙ্গত দিয়ে যাওয়াই তার কাজ। ছেলেটি আনন্দিত মনেই সঙ্গত দিয়ে গেল। আহা! এমন স্বর্গসুখ জীবনে হাজার পুন্য করলে তবে পাওয়া যায়!
যদিও প্রথম দিকে তরুনের মনে বৃদ্ধের সেই শাস্তির কথা উঁকি দিচ্ছিল। কিন্তু অমন থুত্থুরে বুড়ো তার কিই বা এমন করতে পারবে, এ কথা ভেবে সে আর তা পাত্তা দিল না। সবকিছু শেষ হয়ে যাবার পর মেয়েটি যেমন নীরবে এসেছিল তেমনি নীরবে চলে গেল। আর তরুনটিও মনের ভেতর এক অপূর্ব আবেশ নিয়ে ঘুমিয়ে পড়লো।
সকালে তরুনের ঘুম ভাঙলো আবারো বুকের ওপর হালকা চাপ অনুভব করায়। চোখ মেলে দেখলো, তার বুকের ওপর একটা মাঝারি মাপের পাথর। তাতে একটা শাদা কাগজ সাঁটা।

আর তাতে লেখা - নিয়ম ভঙ্গের কারনে চৈনিক শাস্তি ০১ : বুকের ওপর দশ কেজি ওজনের পাথর।

তরুনের ঠোঁট তাচ্ছিল্যের হাসিতে বেঁকে গেল - হুহ! এই তবে চৈনিক শাস্তির নমুনা! সে পাথরটি তুলে সামনের জানালা দিয়ে ছুঁড়ে মারলো। সাথে সাথে সে দেখতে পেল, বুকের যেখানে পাথরটি ছিল সেখানে আরেক টুকরো শাদা কাগজ।

তাতে লেখা - চৈনিক শাস্তি ০২ : বাম টেস্টিকল শক্ত সুতো দিয়ে পাথরের সাথে বাঁধা।

নিজের বিশেষ অঙ্গ বাঁচাতে সে মুহুর্ত মাত্র দেরী না করে জানালা দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়লো পাথরটির পিছে পিছে। ঝাঁপিয়ে জানালা পার হবার সময় সে দেখতে পেল, জানালার বাইরের দেয়ালে আরেকটা বড় শাদা কাগজ সেঁটে আছে।

সেখানে লেখা - চৈনিক শাস্তি ০৩ : ডান টেস্টিকল শক্ত সুঁতো দিয়ে খাটের পায়ার সাথে বাঁধা।
১০। পিচ্চিঃআচ্ছা আম্মু আমার জন্ম কিভাবে হল? আম্মুঃএক পরী এসে তোমাকে আমার কাছে দিয়ে গেছে। পিচ্চিঃআর আমার বোন এর জন্ম কিভাবে হল? আম্মুঃআরেকটা পরী এসেছিল তোমার বোনকে নিয়ে। পিচ্চিঃআয় হায়!তুমি আর আব্বু সেক্স কর নাই?!?

১১।প্রেমিক: Kiss করি?
প্রেমিকা: Lipstick খারাপ হয়ে যাবে৷
প্রেমিক: বুকে হাত দেই?
প্রেমিকা: জামা খারাপ হয়ে যাবে৷
প্রেমিক: Sex করি?
প্রেমিকা: Period চলছে৷
প্রেমিক: Please এবার বলবা না loose motion(diarrhea) হয়েছে৷
১২।একজন স্ট্রীট ম্যাজিশিয়ান ম্যাজিক দেখাচ্ছেন কোন এক আবাসিক এলাকার এক রাস্তার উপরে। সবাই সাগ্রহে তাকে ঘিরে আছে। মূল আকর্ষণ হচ্ছে নাকি তার ম্যাজিক স্পেল আউড়ানোর সাথে সাথে কোথাও নাকি কিছু দাঁড়িয়ে যাবে আর সবাই মিলে যদি ফুঁ দেয় তবে তা বসে পড়বে।
প্রথম বারঃ হ্রিঙ্গা ত্রিঙ্গা ছট্টে... সামনে দাঁড়িয়ে থাকা বাচ্চাটির পকেট থেকে পেন্সিলটি উঠে দাঁড়িয়ে গেলো। সবাই মিলে একযোগে ফুঁ... বসে পড়লো পেন্সিলটি তার জায়গায়।
দ্বিতীয় বারঃ ম্যাজিশিয়ানের মন্ত্র... মাঝখানে দাঁড়িয়ে থাকা একজন ভদ্রমহিলার মাথা থেকে তার হেয়ার পিনটি উঠে দাঁড়ালো। সবাই আবারো ফুঁ... বসে পড়লো হেয়ার পিন।
শেষ বারঃ মন্ত্র পড়া শেষ... সবাই ফুঁ দেবার অপেক্ষায়... কিন্তু কেউ বুঝতে পারছে না কোথায় কি দাঁড়ালো...!! আকস্মিক ভাবেই পাশের এক বাড়ীর দরজা খুলে একজন ৮৫ বছরের বৃদ্ধ বেরিয়ে এসে হাঁক ছাড়লেন, "এই পাঁজির দল, নচ্ছার গুলো, খবর্দার বলে দিচ্ছি, কেউ কিন্তু ফুঁ দিবি না হতচ্ছাড়ারা"...!!

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*