Thursday, June 9, 2011

ধরে ধরে চুদাচুদি


জাবিতে(জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়) পড়ি, ঘটনার শুরু যখন আমি প্রথম বর্ষে ক্লাস শুরু করি। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রথম বর্ষ, মজা আর আড্ডায় কেটে যায়। তো কপাল এ ছিল প্রথম বর্ষে আমি ক্লাসের CR নির্বাচিত হব, হয়ে গেলাম। এবং ক্লাসের অপর CR ছিল একটি মেয়ে (শান্তা), যাকে নিয়ে আমার এই গল্প। তো প্রথম বর্ষ মজা আর আড্ডায় কাটল তা আগেই বলেছি। এর মধ্যে দেখা গেল যে শান্তা ৩ মাস ক্লাস করার পর থেকেই অনুপস্থিত, ত স্বাভাবিক ভাবেই CR হিসেবে দায়িত্ত্ববোধ নিয়ে তার খোঁজ নিতে গিয়ে বিপত্তি বাধালাম। কল করলাম আমি, কল ধরল শান্তার বাসার শিক্ষক, তিনি বললেন যে শান্তার বিয়ে হয়ে গেছে, সে স্বামীর সাথে হানিমুন এ গেছে। শুনে ত আমরা সবাই মজা পেলাম, যাক বিয়ে হয়েছে আমরা শান্তার কাছ থেকে ভালভাবে একটা বড় পার্টি আদায় করব। এই সেই টুকিটাকি করে প্রথম বর্ষের শেষ দিকে এসে শান্তা হাজির। সদা ফটফট করা মেয়ে টি পুরো নিশ্চুপ। কারো সাথে ঠিক মত কথা বলে না। আর অন্যরা ও কেউ তার সাথে সেধে কথা বলে না। তো এই দেখে আমার একটু খারাপ লাগে, কিন্তু আগ বাড়িয়ে আমিও কোনো কথা বলতে যাই না। এমতাবস্থায় প্রথম বর্ষ ফাইনাল সামনে উপস্থিত, সবাই নোট যোগাড় এর জন্য ব্যাস্ত। এর মধ্যে একটা কোর্সের নোট শুধু আমার কাছেই আছে, তো সবাই আমার কাছ থেকে কপি করে নেয়া শুরু করে। শান্তা ও আসে আমার কাসে, ফায়দা নিয়ে আমি শান্তার মোবাইল নং টা নিয়ে নেই। শুরু হয় আমাদের মাঝে যোগাযোগ।

-
প্রথম বর্ষ ফাইনালে আমি পাস করে যাই, কিন্তু শান্তা ফেল করে, ইয়ার ড্রপ করে। আমার মনে ওর প্রতি সহানুভুতি জন্ম নেয়। এর মাঝে ওর সব কাহিনী আমার জানা হয়ে যায়। ওর প্রতি একটা অন্যরকম সহানুভুতি কাজ করত আমার সব সময়, বন্ধুদের সময় দেয়া বাদ দিয়ে ওর সাথে সময় দেয়া শুরু করি। এক সময় দেখি যে আমি ওর প্রেমে পরে গেছি। অনেক দোটানার মাঝে ওকে প্রস্তাব দেই, এবং সে রাজি ও হয়ে যায়। এবং শান্তা রাজি হওয়ার ঠিক ২ দিন পরের কথা, আমরা ২জন ঘুরতে বের হই, এমনিতে আমরা ২জন আগে থেকেই অনেক ঘুরতে যেতাম। তো সেদিন আমরা আশুলিয়া চলে যাই, সেখানে নদীর পাড়ে বসে ২জন গল্প করা শুরু করি, তখন শীতকাল, সন্ধ্যা ৫.৩০ এর দিকেই হয়ে যায়। আমাদের গল্প করতে করতে ৬টা বেজে যায়।
-
এমন সময় হঠাৎ করে আমি ওর হাত ধরি… ও কেমন যেন একটা শক খেল, আমি ওর হাত টা আর জোরে চেপে ধরে ওকে আমার কাছে টেনে নেই। আস্তে করে প্রশ্ন করি “কী শীত করছে?” ও কোনো উত্তর না দিয়ে আমার গায়ের সাথে আর শক্ত করে চেপে বসে। আমি ওর চোখের দিকে তাকাই, দেখি কেমন যেন এক ধরনের নেশাখোরের দৃষ্টি, সে দৃষ্টির দিকে থাকতে থাকতে আমিও কেমন যেন নেশাগ্রস্ত হয়ে যাই, আস্তে করে ওর দিকে আমার মুখটা এগিয়ে দেই, ও নিজের মুখটা একটু উঁচু করে আমার মুখে লিপ কিস শুরু করে। প্রথমে আমি একটু হতভম্ব হয়ে গেলে ও ২ সেকেন্ড পরেই ওর ঠোটে এমন ভাবে কিস করতে থাকি যেন কোনো ছোট বাচ্চা ললিপপ খাচ্ছে। চারপাশের দুনিয়া থেকে আমরা হারিয়ে যাই, যেন সমগ্র দুনিয়া তে আমরা ২জন ছাড়া আর কেউ নেই। এমন ভাবে ৪-৫ মিনিট পার হওয়ার পরে শান্তা বলে উঠে, “এই ওঠো, সন্ধ্যা হয়ে গেছে, ক্যাম্পাসে ফিরতে হবে না?”। আমি জবাব দেই “কেন আজ না ফিরলে কি খুব বেশি সমস্যা হবে?” ও বলে “না, তবে হল সুপার খুব চিল্লাপাল্লা করবে” (আগে বলি নাই, আমি বাসা থেকে ক্যাম্পাস গিয়ে ক্লাস করতাম আর ও হল এ থাকত) । মনে মনে আমি হল সুপার এর চৌদ্দগুষ্টি তুলে গালাগালি করলাম। কিন্তু চেহারাটা একটু কালো করে মুখে বললাম যে, “তাহলে কি আর করা, আজকের মত অধিবেশন এখানেই সমাপ্ত করা যাক”। শুনে শান্তা আমার ঠোটে একটা গাড় চুমু দিয়ে বলল, ” আমার জান, মন খারাপ করো না, ঠিক এ একটা ব্যাবস্থা করে আজকের অসমাপ্ত অধিবেশন অতিসত্ত্বর শেষ করব, কথা দিলাম”। ওর এই কথা শুনে একটু হাসি দিয়ে বললাম, “তাহলে চল তোমাকে হল এ দিয়ে আমি বাসায় চলে যাই” (তখন প্রায় সন্ধ্যা ৬.৩০) ক্যাম্পাস থেকে রাত ৮ টায় ঢাকার বাস আছে, তো আমার কোনো চিন্তা ছিল না। আর আশুলিয়া থেকে ক্যাম্পাস ফিরতে বরজোড় ৩০ মিনিট লাগবে।
-
মনে মনে হিসাব করে ফেলি, ক্যাম্পাস পৌছে ও আমার হাতে ১ ঘন্টা থাকে বাস ধরার জন্য। তো ক্যাম্পাস এর দিকে রওনা করে আমরা ২০মিনিট এ ক্যাম্পাস এ পৌছে যাই। তো তখন সন্ধ্যা ৭টার কাছাকাছি সময়, চারিদিক সুনসান নীরব। আমরা ২জন হাত ধরে হাটতে থাকি, আর প্রকৃতির সুধা পান করতে থাকি। শান্তা আমার হাতটা এত শক্ত করে ধরে ছিল, যেন আমাকে হারিয়ে ফেলার ভয় আছে ওর। হাটতে হাটতে আমরা কিছুটা নির্জনে চলে যাই নিজেদের অজান্তেই। আমি ওকে প্রশ্ন করি, “ভয় পাচ্ছ?” ও উত্তরে বলে ” ভয় পাব কেন, তুমি আমার পাশে আছ, সব ভয় তোমার কাছে এসে থেমে যাবে, আমার কাছে আসবে না”। কথাটা শুনে আমি বলি, “কিন্তু আমার যে ভয় করছে, সেই ভয় দূর করবে কে?” শান্তার উত্তর “আস আমি তোমার ভয় দূর করে দিচ্ছি”। বলে সে আমাকে একটু অন্ধকার কোনার দিকে নিয়ে গিয়ে নিজে ঘাসের উপর বসে আমাকে টেনে বসাল। তারপর বলে, “জান, আমার কমলালেবু দুটো কি তোমার পছন্দ হচ্ছে না? এ দুটোর রস খেয়ে নাও, তোমার ভয় দূর হয়ে যাবে” ওর কথা শুনে আমি শিহরিত হয়ে উঠলাম। প্রেমের প্রস্তাব গ্রহণ করার ২দিন এর মাথায় একটা মেয়ে এই রকম কথা বলতে পারলে সে কি রকম ক্রেজি তা ছিন্তা করুন আপনারাই। তো কথা শুনে আমি আর দেরি করলাম না, এমনিতেই হাতে সময় কম, তার উপর এই রকম সুযোগ পেলে তা দূরে ঠেলে দেয়ার মত গাধা আমি নই। আমি সুন্দর মত ওর জামার উপর থেকে ওর কমলালেবু ২টা কে আদর করতে শুরু করি, ও আদর পেয়ে চখ বন্ধ করে ফেলে আর আমার দিকে ঠোট এগিয়ে দেয়। আমিও কাল বিলম্ব না করে ওর অধর-সুধা পান করতে থাকি। ওদিকে আস্তে করে ওর জামার ভিতরে আমার হাত দুটো ঢুকিয়ে দিইয়ে আরও মনমত আদর করা শুরু করি। দেখি যে আবেশে শান্তার মুখ দিয়ে মৃদ আওয়াজ বের হচ্ছে, মনে মনে ভাবলাম, সুযোগ পেলে আজই ওকে… এমন সময় বেসুরো সুরে আমার মোবাইল টা বেজে উঠল, এক কাছের বন্ধুর নাম দেখে কল টা ধরি, “ওই হারামজাদা, ৮টার বাস মিস করলে বাসায় কি উইড়া যাবি?” আমি আসছি বলে কল টা কেটে দিলাম। আমার মন খারাপ বুঝতে পেরে শান্তা আমার গালে তার ভালবাসার একটা অধরা চিন্হ বসিয়ে দিয়ে বলে “তোমার বাস ছেড়ে দিবে, তুমি যাও” আমি মুখ খুলতে গেলাম, সে আমার মুখে হাত চাপা দিয়ে বলল যে, এখান থেকে হল এ যেতে ১মিনিট লাগবে, আমি একাই পারব, তুমি যাও, দেরি হয়ে যাবে”। ওর গালে ছোট্ট একটা চুমু দিয়ে আমি দৌড় দিলাম বাস এর উদ্দেশ্যে। একটুর জন্য বাস ধরতে পারলাম। কিন্তু আমার মনটা পরে রইল আমার জান-শান্তার কাছে…
-
সময়ের মত করে সময় কেটে যায়। সবাই বলে সুখের সময় কিভাবে প্রচন্ড গতিতে পার হয়ে যায় টের পাওয়া যায়না। আমাদের ক্ষেত্রেও এমন ঘটল। সেই অসমাপ্ত ঘটনার প্রায় ৪ মাস পরের কথা। একদিন আমি ক্লাস শেষে বসে ছিলাম লাইব্রেরীর সামনে, এমন সময় হঠাৎ করে পেছন থেকে কে যেন আমার চোখ চেপে ধরল, প্রথমে আমি চমকে গেলেও পর মূহুর্তে একটি মিষ্টি গন্ধ আমার নাকে এসে লাগাতে আমি বুঝতে পারি যে আমার পিছনের মানবীটি আর কেউ নয়, শান্তা। হাত ধরে ওকে সামনে নিয়ে আসতেই ছোট্ট একটা হাসি দিয়ে বলল, “তোমার জন্য একটা সুখবর আছে”। আমি বলি, “ কি, তোমার সাথে আমার বিয়ে ঠিক হয়ে গেছে?”। শান্তা বলে, “তা হলে তো ভালই হত, কোনো লুকোচুরি খেলতে হত না বাসার সাথে। ঘটনা হচ্ছে ২দিন পরে আমার বাসায় তোমার দাওয়াত”। ওর কথা শুনে মুখে একটু হাসি ফুটে উঠলেও মনে মনে ভয় পেয়ে গেলাম, ওর মুখে শুনেছি ওর বাবা নাকি ভয়ঙ্কর রাগী। তার সামনে পরার কথা মনে আসতেই আমার হাসিটা নিভে গেল। ও আমার মনের কথা বুঝতে পেরে বলল, “ভয় পেও না জান, ওইদিন বাবা বাসায় থাকবে না”। আমার মুখে হাসি টা আবার ফিরে এলো। কিন্তু আরো বড় চমক আমার জন্য অপেক্ষা করছিল, যা আমি ওর বাসায় যাওয়ার আগে টের পাইনি।
-
তো ২দিন পরে ওর সাথে ওর বাসার দিকে চললাম, ক্যাম্পাস থেকে ১২টার দিকে রওনা দিলাম। শান্তা বলেছিল যে ওর বাসায় গিয়ে দুপুরের খাওয়া খেতে। তো ওর বাসায় পৌছে গেলাম ১.৩০ ঘন্টার মধ্যে। গিয়ে আমার জন্য সেই চমক টা টের পেলাম, বাসার দরজায় তালা মারা। আমি চমকে উঠে শান্তাকে বললাম, “কি হল, বাসায় কেউ নেই?”। ওর শান্ত কন্ঠের উত্তর, “সেই জন্যই তো তোমাকে বাসায় এনেছি। নিজের হাতে রেঁধে খাওয়াব”। কিন্তু এই কথার সাথে ওর মুখের একপ্রান্তে ফুটে ওঠা ছোট্ট রহস্যময় হাসিটা আমার নজর এড়ায়নি। বুঝতে পারলাম যে আজকে কিছু একটা ঘটতে চলেছে।
-
তো ঘরে ঢুকে আমাকে সোফাতে বসতে বলে ও ভিতরে চলে গেল এই বলে, “আমি একটু ফ্রেশ হয়ে আসি”। ২মিনিট পরে আমি কিছুটা কৌতূহল বশে ওর রুমের দিকে পা বাড়ালাম। ওর রুমের দরজা অর্ধেক খোলা ছিল। তাতে আমার দৃষ্টির সামনে যা দেখছিলাম তা ছিল কল্পনার বাইরে, শান্তা শুধু ব্রা-প্যান্টি পরে আমার দিকে পিছন ফিরে দাঁড়িয়ে আছে। আমি ওর দিকে হা করে তাকিয়ে আছি, আমার আর কোনো খেয়াল ছিল না। বেখেয়ালে নিজেকে চিমটি কেটে উঠি যে আমি কি স্বপ্ন দেখছি না বাস্তব। আর আঊ করে উঠি। আমার আঊ শুনে শান্তা আমার দিকে ফিরল। এবার ওকে দেখে যেন আমার বেহুঁশ হওয়ার অবস্থা। আমার সামনে যেন এক অপ্সরী দাঁড়িয়ে আছে। যার রূপের বর্ণনা ভাষার মাধ্যমে দেওয়া আমার সাধ্যের বাইরে। গোলাপী একজোড়া অধর (যেন সদ্য প্রস্ফুটিত গোলাপ), ব্রা দিয়ে ঢাকা একজোড়া স্তন (যেন একজোড়া কমলালেবু) আর প্যান্টির দিকে তাকিয়ে কি দেখছি তা চিন্তা করতে পারছিলাম না, ওর যোনীটা বাইরে থেকেই অনুভব করা যাচ্ছিল, শান্তাও যেন আমার আদর পাওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে ছিল। আমি ওর দিকে এগিয়ে গেলাম ধীর পায়ে, আস্তে করে ওকে স্পর্শ করলাম, যেন নিশ্চিত হতে চাইছি, আসলেই শান্তা না কোনো পরী।
-
শান্তা আমার দিকে ওর অধর বাড়িয়ে দিল, আমিও কাল-বিলম্ব না করে সেদুটো কে আদর করতে শুরু করলাম। আর ধীরে ধীরে হাত দিয়ে ওর স্তন দুটোকে দলতে লাগলাম। ও নিজেই হাত পিছনে নিয়ে গিয়ে ব্রা-র হুক খুলে দিয়ে বলল, “তোমাকে কথা দিয়েছিলাম না, অসমাপ্ত কাজটা আজ সমাপ্ত কর”। কথা শুনে আমি ওর স্তনের উপর থেকে ব্রা নামক আবরণ টি সরিয়ে ফেলি। কি বলব ভাই, এমন সুন্দর স্তন সবাই কল্পনায় দেখে আর তা আমার চোখের সামনে আমার দু হাতের মাঝে। সম্পূর্ণ টাইট আর সাইজ সম্ভবত ৩৩/৩৪ হবে(এই বিষ্যে আমার ধারণা সীমিত)। আর বোটা দুটো গাড় বাদামী (যেন চকলেট)। আমি আস্তে করে ওর বাম স্তনের বোটায় মুখ নামিয়ে আস্তে করে জিহবা নাড়তে লাগলাম এবং একটু করে চুষতে লাগলাম। আর ডান পাশের টা ডান হাত দিয়ে আদর করতে লাগলাম। এভাবে কিছুক্ষণ আদর করার পরে শান্তা বলল, “শুধুই কমলা খেলে চলবে? নাকি আর কিছু পছন্দ হয় না?” ওর এই কটুক্তি শুনে আমি আস্তে আস্তে নিচের দিকে নামতে লাগলাম। (শান্তা তখনো দাঁড়িয়ে আছে আর আমি ওর সামনে হাঁটু গেড়ে বসা)। আমি ওর নাভিতে আস্তে করে একটা চুমু দিতেই ও কেঁপে উঠল। আমাকে দাঁড় করিয়ে এক ধাক্কা দিয়ে ওর বিছানায় ফেলে দিল। (আমি ওর রুমে গিয়ে যেখানে দাঁড়িয়েছিলাম, তার পাশেই ওর বিছানা ছিল। আমাকে বিছানায় ফেলে দিয়ে ও আমার শার্ট টেনে খুলে ফেলল। আমার পরনে ছিল একটা জিন্স। জিন্সের ভিতরে তখন আমি যেন একটা নতুন অস্তিত্ব টের পাচ্ছিলাম। শান্তা আমার প্যান্ট খুলে ফেলে আমার উপর ঝাপিয়ে পড়ল। এবং পাগলের মত আমাকে চুমু খেতে খেতে বলতে লাগল, “এইদিন টির জন্য আমি কবে থেকে যে অপেক্ষা করছি তা তোমাকে কিভাবে যে বলে বুঝাব, আজ তুমি আমায় সব কিছু নিয়ে নাও। আমায় শেষ করে ফেল”। আমি ওর দিকে তাকিয়ে বললাম যে, “আমিও যে এই দিনটির অপেক্ষায় ছিলাম জান, আজ আমার স্বপ্ন পূরণ হওয়ার দিন”। এরপর আর কথা না বাড়িয়ে ওকে শুইয়ে দিয়ে আমি ওর প্যান্টি টা আস্তে খুলে ফেললাম। ভিতর থেকে বেরিয়ে এল সুন্দর পরিষ্কার গোলাপী একটি যোনী, যা কখনো কোনো ছেলের স্পর্শ পায়নি। আমি আস্তে করে শান্তার যোনীতে একটা চুমু খেলাম, ও কেঁপে উঠল। আমি যোনীর আশেপাশে চুমু খেতে লাগলাম আর দুই হাত দিয়ে ওর কমলালেবু দুইটা কে আদর করতে লাগলাম। আমি এদিকে শান্তার যোনীতে আমি জিহবা দিয়ে কারসাজি চালাচ্ছি আর ওদিকে শান্তা আনন্দে আর উত্তেজনায় মুখ দিয়ে চাপা শব্দ করছে। এভাবে কিছুক্ষণ করার পরে আমি আঙ্গুল দিয়ে ওর ক্লিটটা নাড়তে লাগলাম। ২মিনিট আঙ্গুলি করার পরে শান্তা আমাকে বলে উঠল, “এই শয়তান, সব মজা নিজেই নিয়ে নিচ্ছ, আর আমি যে এদিকে কিছু একটা অভাব বোধ করছি তার কি হবে? আমাকে পূর্ণ করে দাও, আমি আর থাকতে পারছি না”। কে কার কথা শোনে, আমি আমার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আর ওদিকে শান্তা আমাকে সমানে বলে যাচ্ছে, আমি আর পারছি না, আমাকে গ্রহণ কর তাড়াতাড়ি। এভাবে মিনিট পাচেক পার হওয়ার পরে শান্তার অবস্থা যখন চরম পর্যায়ে, আমি থেমে গেলাম। শান্তা অবাক হয়ে বলল, “থামলে কেন?”। আমি বললাম, “এবার তোমার পালা”। আমার কথা শুনে শান্তা একটা মুচকি হাসি দিয়ে আমাকে শুইয়ে দিয়ে আমার আন্ডারওয়্যার টা খুলে নিল। ভিতর থেকে আমার পেনিস টা বেরিয়ে এল। শান্তা মুচকি হেসে বলল, “এইটা কে জান? একে তো ঠিক চিনতে পারলাম না”। আমি উত্তর দিলাম, “তোমার মুখ টা দিয়ে ওটাকে আদর কর, তাহলে চিনতে পারবে”। শান্তা ব্লোজব দেওয়া শুরু করল। ওর ব্লো দেখে তো আমি অবাক, একটা বাঙ্গালী মেয়ে এত সুন্দর ব্লোজব করতে পারে, সেটা কল্পনার বাইরে। আমি চিন্তা করছি আর ওদিকে শান্তা তার কারসাজি চালিয়ে যাচ্ছে, এদিকে তো আমার অবস্থা তখন প্রায় চরম। শান্তা মুখের কারসাজিতে আমার পেনিস তখন পূর্ণাঙ্গ রূপ ধারণ করেছে। শান্তা ওর মুখ সরিয়ে আমাকে বলল, “এবার কি আমাদের প্রতিক্ষার পালা শেষ হবে?”। আমি ওর কথার কোনো জবাব না দিয়ে ওকে শুইয়ে দিয়ে ওর যোনীর মুখে আমার পেনিস টা বসিয়ে আস্তে একটা ধাক্কা দিলাম, দিয়েই বুঝলাম যে শান্তার কুমারীত্ব এখনো বর্তমান। এখন যাকে ভালবাসি তাকে তো ধোকা দিতে পারি না। শান্তা কে প্রশ্ন করলাম, “কি করব?”। শান্তা বলল, “চিন্তা করো না, তোমার কাজ তুমি কর”। আমি একবার ওর চোখের দিকে তাকিয়ে বুঝলাম যে শান্তাও এটাই চাইছে। পরমুহূর্তে শান্তার কুমারীত্ব বিসর্জন হয়ে গেল আমার কাছে। শান্তা আমার দিকে একটা হাসি দিল, “আমার স্বপ্ন পূরণ হল”। আমিও পালটা হাসি দিলাম।
-
আমি আস্তে ধীরে আমার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। শান্তা নিজের হাত দিয়ে ওর কমলালেবু দুইটা কে আদর করে যাচ্ছে। আর চাপা শীৎকার করছে। বেশি জোরে করলে ভয় আছে, পাশের বাসার লোকজন শুনে ফেলতে পারে। এবার আমি শান্তার উপর শুয়ে পরে ওর অধর দুটো আমার ঠোটের মাঝে নিয়ে নিলাম আর হাত দিয়ে ওর স্তন দুইটা নিয়ে খেলতে লাগলাম। আর ওদিকে মূল কাজ তো চলছেই, সেটা কি আর থামিয়ে রাখা যায় !!! । এভাবে কতক্ষণ ধরে আমরা যে নিজেদের মাঝে হারিয়ে ছিলাম তা বলতে পারব না। শান্তার কথায় আমি বাস্তবে ফিরে আসি, “আমার প্রায় হয়ে আসছে”। আমি বললাম, “আমারও একই অবস্থাম বেশিক্ষণ আর থাকতে পারব না”। আমাদের কথা শেষ হতে না হতেই আমরা দুজনেই নিজেদের চরম মুহূর্ত একসাথে পার করলাম। শান্তা ও আমি একসাথে। এরপর আমরা এলিয়ে পরলাম। শান্তা আমাকে বলল, “জান, আমি যে কতরাত স্বপ্ন দেখেছি যে আজকের ঘটনা টা নিয়ে, কবে ঘটবে, কবে তুমি আমার সর্বস্ব নিয়ে নিবে, এর জন্য যে এতদিন অপেক্ষা করতে হবে তা কে জানত”। (তখন আমাদের প্রেমের বয়স মাত্র ৪মাস)। এরপর আবার শান্তা আমাকে চুমু খাওয়া শুরু করল। আমি বলে উঠলাম, “এই তোমার দুপুরের খাবার? মন তো ভরেছে, কিন্তু ওদিকে পেটের ভিতরে যে শোচণীয় অবস্থা, তার কি হবে?”। আমার কথা শুনে শান্তা হেসে উঠে কিছু বলতে যাবে, এমন সময় ওদের বাসার কলিংবেল বেজে উঠল।

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*