Thursday, August 4, 2011

বিশ্বাসে অবিশ্বাস

সাকির বসে বসে ভাবছিল অফিসের কথা। হরতাল মানুষকে পঙ্গু করে দিচ্ছে। জাতীতে আমরা বাঙ্গালী। আমাদের একটি জাতীয় অভ্যাস আছে, তা হল আলস্য। আর সপ্তাহে সরকার দু'দিন বন্ধ দিয়ে এবং বিরোধী দল হরতাল দিয়ে আমাদের অভ্যাস টাকে আরও বৃদ্ধি করে দিচ্ছে। হরতাল বা বন্ধ এর পর দিন অফিসে গিয়ে ছুটির আবেশ কাটাতেই সময় চলে যায়। ফলে অফিসে যে কি কাজ হয় তা সহজেই অনুমেয়। সাকিরের এটি ভাল লাগে না। এমন কেন হয়? মুখেতো সকলেই দেশকে ভালবাসে আসলে কি এটাই তার নমুনা?

আজ হরতাল তাই গতকাল অফিসে ঠিকমত কাজ হয়নি। সাকিরের অবশ্য তেমন কোন কাজ না থাকায় বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিয়ে সময় কাটাতে হয়। গত কালের আড্ডাটি বেশ জমে উঠেছিল। বিশেষ করে নাসিরের কথাগুলো ওর  মনে খুব ধরেছে। নাসির ওর কলিগ। খুব সুন্দর করে গুছিয়ে কথা বলতে পারে। নাসির যেখানে থাকবে সেখানে আর কারো কথা বলার সুযোগ থাকে না। তবে গত কাল ও বেশ সুন্দর সুন্দর কথা বলেছে। এক কথার জের ধরে ও বলেছে- মানুষ মন থেকে যা চায়, যদি অযৌক্তিক ও হয় এবং চাওয়াটা যদি অন্তরের হয় তবে তা পাওয়া যায়। কথাটি সত্যি। কারণ ওর নিজের জীবনে এমন একটি ঘটনা  আছে যা ওর কথার সাথে মিলে যায়। সাকির অতীতে ফিরে যায়-

কলেজ থেকে বেরিয়ে মাত্র চাকরীতে ঢুকেছে। কলেজের গন্ধ তখনও গা থেকে যায়নি। তাই চাকুরীর সঠিক পদ্ধতিতে ও চলতে পারে না। দেখতে শুনতে খুব সুন্দও আর ফর্সা চেহারাটা ওর  একটি প্লাস পয়েন্ট। হ্যান্ডসাম বলতে যা বুঝায় সাকির তাই। চাকুরীতে ঢুকে ওর  প্রথম পরিচয় ঘটে অজিতের সাথে। অজিত ওর চেয়ে এক বৎসরের সিনিয়র। দেখতে দেখতে ৩ বৎসর পেরিয়ে গেল। সাকির এখন ভাল কর্মচারী। সকলেই ওকে ভালবাসে। কাজের জন্য না হলেও ওর ব্যবহা্রে সকলেই  প্লিজ। হঠাৎ ওকে বদলি করে ঢাকায় দেয়া হলো।

ঢাকাতেও ৫ বৎসর কেটে গেল। অজিতের সাথে খুব একটা যোগাযোগ ছিল না। হঠাৎ সেদিন অজিতকে হেড অফিসে দেখে সাকির বুকে জড়িয়ে ধরলো। সব কুশল জিজ্ঞেস করে জানতে পারলো অজিত এখন ঢাকায় থাকে। ইতোমধ্যে বিয়ে করেছে এবং একটি ছেলেও আছে। বৌকে চাকুরী নিয়ে দিয়েছে। সে হেড অফিসে চাকুরী করে। সাকির শুনেতো অবাক। এই সময়ে মধ্যে এতো কিছু হয়ে গেছে? আর ও এখুনও বিয়েই করেনি। অনেকখন  কথা বলে শেষে বাসার ঠিকানা দিয়ে বাসায় যাওয়ার আমন্ত্রন জানিয়ে বিদায় নিল অজিত।

কয়েকদিন পর হঠাৎ সাকিরের মনে হলো অজিতের বাসায় যাওয়ার কথা। যেই চিন্তা অমনি রওনা। হেড অফিস ২টায় শেষ কাজেই বিকেলে ওদের পাওয়া যাবে ভেবে রওনা দেয় সাকির। ঠিকঠাক মত বাসাও পেয়ে যায়। অজিত ওর বৌকে পরিচয় করিয়ে দেয়। সাকির অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে রমা বৌদির দিকে। সাকির ভাবে কত মেয়ের সাথেইতো এ পর্যন্ত দেখা, পরিচয়, ঘনিষ্ঠতা আর মিলন হয়েছে কিন্তু এমনটি আর দেখিনি। অজিত এমন একটি বৌ পাবে তা স্বপ্নেও ভাবতে পরেনি। যেমন গায়ের রং তেমনি লম্বা চুল। মাথা ভর্তি চুলগুলো আঁকাবাকা হয়ে পিঠের উপর থেকে নেমে মাজার নিচ পর্যন্ত ঢেউ খেলে যাচ্ছে। বডিটাও মেয়েলি ধরণের খুব সুন্দর। পেটে এতটুকু মেদ নেই। পাছাটি বেশ ভারী। শরীরের সাথে এমনভাবে মানিয়েছে যেন সৃষ্টিকর্তা নিজের হাতেই ওকে তৈরী করেছেন। অজিত ঠাট্টা করে বলে - কিরে আমার বৌ পছন্দ হলো ? সাকির লজ্জা পেয়ে বলে-তোর বৌ আমার পছন্দ হবে কেন? আমার বৌদিকে খুব পছন্দ হয়েছে। আর প্রথম দেখাইে প্রেমে পড়ে গেছি। সবাই একসাথে হেসে উঠে। অজিত ঠাট্টা করে বলে-দেখিস ভাই আমি তোর মত সুন্দর না, প্রেম টেম করে আমাকে আবার এতিম করে দিস না। বৌদিও কম যায়না। সংগে সংগে বলে উঠে-রমাকি পৃথিবীতে একজন নাকি? প্রেম করে যদি ওর সাথে ভেগেই যাই তবে তুমি আর একজন রমাকে খুজে নিও। অজিত সাথে সাথে রমাকে জড়িয়ে ধরে বলে-রক্ষে কর আমি আর রমা খুজতে পারবো না। আমারটাই আমার কাছে থাক। সবাই আবার উচ্চস্বারে হেসে উঠে। এভাবেই সাকির আর অজিত পরিবার দিন দিন ঘনিষ্ট হয়ে ওঠে। অজিত সাকিরকে খুব বিশ্বাস করে তাই ঐ মেলামেশাকে কোন খারাপ দৃষ্টিতে দেখে না। অবশ্য সাকিরও এমন কিছু করেনি যে তার জন্য অজিত তাকে সন্দেহ করতে পারে। দিন চলতে থাকে। রমা ঠিকই বুঝতে পারে সাকির ওর প্রতি খুবই দূর্বল হয়ে পড়ছে। কিন্তুু কোন মতেই প্রশ্রয় দেয় না।

সাকিরের মনে যে আগুন প্রথম দেখাতেই জ্বলেছিল তা ধীরে ধীরে বেড়ে এখন তীব্র আকার ধারণ করেছে। কিন্তু কোন উপায় দেখে না। কিভাবে ও রমাকে আপন করে কাছে পেতে পারে। বলতে গেলে সাকির এখন সারাক্ষণ রমার চিন্তায় মসগুল থাকে। মাঝে মাঝে ও স্বপ্নেও দেখে। সাকির ইচ্ছে করে বড় সাহেবকে বলে রমার বিভাগে বদলী হয়ে ওকে কাছে থেকে পেতে চাইল। এতে করে খুব অল্প দিনেই সাকির রমার খুব কাছে চলে এলো। সাকির বুঝতে পারে বন্ধুর বৌয়ের প্রতি নজর দেয়া বা তাকে আপন করে পাওয়ার চিন্তা করা খুব খারাপ কিন্তু পোড়া মনটাকে কিছুতেই বুঝাতে পারে না। সারাক্ষণ ও একই চিন্তা কি করে রমাকে পাওয়া যাবে। রমা ওর সাথে সব কিছু আলাপ করে। অনেক অনেক কথা কিন্তু একটি বিষয়ে সে দুরত্ব বজায় রেখে চলে। রমা প্রথম দিনই ঝুঝতে পেরেছিল সাকির ওর  জন্য কতটা উগ্রিব। তাই ওর সাথে ভাব জমিয়ে ওকে দুরে রেখেছে।

সাকিরের দিন আর যায় না। রাতের ঘুম হারাম হয়েগেছে। চোখ বন্ধ করলেই দেখে রমা ওকে বুকে জড়িয়ে ধরে আদর করছে। তাকিয়ে পাগলের মত লাগে। রমার সাথে অনেক দিন চলার পর ও বুঝতে পেরেছে রমার পিতার বাড়ী বেশ গরীব। ওর অর্থ প্রয়োজন। সাকির অবশ্য নানা ভাবে ওকে অর্থ প্রদান করতে চেয়েছে কিন্তু রমা নেই নি। রমা লুকিয়ে লুকিয়ে ওর বাবাকে সাহায্য করে। সাকির এই সুযোগটি কাজে লাগাতে চায়। বহু চিন্তা করে ঠিক করলো রমার ঐ দূর্বল জায়গাটাতে হাত দিতে হবে।
কয়েকদিন হয় কাজের মেয়েটি চলে গেছে ওর দেশের বাড়ী। কাজেই বাসা খালি। বাচ্চাকে একা রেখে আসা সম্ভব নয়। তাই অজিত আর রমা দুজনে ভাগ করে অফিসে আসছে। অজিত যেদিন অফিসে আসে সেদিন রমা বাসায় থাকে। আবার রমা যেদিন অফিসে আসে অজিত সেদিন বাসায় থেকে বাচ্চাকে দেখে শুনা করে। খবরটা জেনেই সাকিরের মন আনন্দে নেচে উঠে। খোজ নিয়ে দেখে অজিত আজ অফিসে এসেছে কাজেই রমা বাসায় একা। সাকির একটা স্কুটার নিয়ে একটানে রমার বাসায় এসে উপস্থিত হল। দোতালা বাসায় কলিং বেল টিপতেই রমা এসে দরজা খুলে দাড়ায়। কোন সাজগোজ নেই। সাদামাটাভাবে একটি সুতির শাড়ী পড়েছে। তাতেই ওকে খুব সুন্দর  লাগছে। রমা সাকিরকে দেখে একটু অবাকই হয়। মনে যাই থাকুক কিন্তু মুখে একটু হাসি টেনে বলে-কি ব্যাপার, হঠাৎ আপনি?
বাইরে দাড়িয়েই কথাই বলবো ভিতরে আসতে দিবেন না? সাকির মিষ্টি করে হেসে বলে।
ও হ্যা। আসুন আসুন বলে ওকে ড্রইং রুমের দিকে যেতে বলে। সাকির ঘরে ঢুকে একটি সোফায় গিয়ে বসে। রমা গেট লাগিয়ে ওর পিছন পিছন এসে আর একটি সোফায় বসে বলে-হ্যা এবার বলুন অফিসে জাননি ?
গিয়েছিলাম, ভাল লাগলো না তাই চলে এলাম। একটু মিথ্যে করে বলে-আসলে আপনার এখানে আসবো বলে বের হইনি। এখানে আর একজন বন্ধু থাকে তার খোজে এসেছিলাম। ওর কাছে অনেকগুলি টাকা পাবো আজ দেয়ার কথা তাই।
পেলেন ?
হ্যা পেয়েছি তবে পুরো না। মানুষকে টাকা ধার দিলে সে টাকা তোলা খুব কঠিন ব্যাপার। কাজ তাড়াতাড়ী শেষ হয়ে গেল তাই ভাবলাম আপনি তো আজ বাসায় তাই দেখা করে যাই। কোন অসুবিধা আছে নাকি? তাহলে চলে যাই। অভিমানের সুরে সাকির বলে।
না না কি অসুবিধা। বসুন। এসে যখন পড়েছেন তখন একটু জিড়িয়ে যান। এমনি করে দু'জনে গল্পে মজে উঠে। সাকির ভালভাবেই জানে মেয়েদের সাথে কিভাবে জমাতে হয়। তার উপর রমার দুর্বল জায়গাটা ধরে এগিয়ে যায়। কথায় কথায় একসময় সাকির রমাকে জিজ্ঞেস করে-আচ্ছা বৌদি একটি সত্যি কথা বলবেন?
রমা দুষ্টমির হাসি দিয়ে বলে কি সত্যি কথা খারাপ কথা হলে বলবো না।
না না খারাপ কথা নয় সত্যি কথা।
ঠিক আছে বলেন বলবো।
অজিত আপনাকে তৃপ্তি দিতে পারে ? বলেই সারিক রমার চোখের দিকে তাকিয়ে থাকে। সাকিরের এই কথা বলার উদ্দেশ্য আছে। কারণ অজিত বেশ একটু বেটে প্রকৃতির আর চেহারা টাও দেখার মত না। তাছাড়া বয়সেও বেশ বড়।
রমা কিছু বলে না। চুপ করে থাকে। সাকির আবার বলে। বলেন না ? আমার খুব জানতে ইচ্ছে করে।
রমা উঠে দাড়ায়। সাকির নাছোড় বান্দা। বলে আপনি কথা দিয়েছিলেন সত্যি কথা বলবেন। রমা অন্য ঘরে যেতে যেতে বলে - না।
সাকির এই উত্তরটাই চেয়েছিল। যদি কোন মেয়ের স্বামী তাকে তৃপ্তি দিতে না পারে তাহলে তারা অতৃপ্ত থেকে যায় এবং অন্য পুরুষের প্রতি বেশ দুর্বল থাকে। সাকির এটা ভাল করেই জানে। সাকিরের মনটা খুশিতে নেচে উঠে।
রমা উঠে গিয়ে ফ্রিজ থেকে একবাটি ফিন্নি আর এক গ্লাসে পানি এনে সাকিরকে খেতে বলে। সাকির লক্ষ্য করে এর মধ্যেই রমা নিজেকে আরও একটু গুছিয়ে ফেলেছে। তাতে ওকে আরও সুন্দর লাগছে।
ফিন্নি খেয়ে সাকির বলে আপনার হাতের রান্না এত মিষ্টি, যে হাত দিয়ে রান্না করেন তা যেন কত মিষ্টি। দিন না হাতটা চেখে দেখি কত মিষ্টি ? এই বলে সাকির ওর হাতটা বাড়িয়ে দেয়।
রমা নিজের রান্নার তারিফ শুনে একটু খুশি হয়-কিন্তু মুখে বলে-ইস সখ কত ? বিয়ে করে ঘরে বৌ এনে তার হাত চেখে দেখবেন। সাকির হাত না সরিয়েই বলে সেটা যখন বিয়ে করি তখন দেখবো কিন্তু এখন আপনার হাতটা দিন প্লিজ।
রমা কি মনে করে হাতটি বাড়িয়ে দেয়। সাকির রমার হাতটি ধরে একটু নাড়াচাড়া করে পট করে টানদিয়ে হাতে চুমু খায়। রমা জোর করে হাতটি ছাড়িয়ে নেয়। সাকির বলে বৌদি সত্যি আপনার হাত মিষ্টি।
আচ্ছা একটি কাজ করলে কেমন হয় ? অনেক দিন তো আমি আপনাকে সাহায্য করতে চেয়েছি, কিন্তু আপনি নেন নি। বলেছেন এমনি এমনি কি করে নেব। আজ একটি কাজ করুন। আপনি তো জানেন আপনার প্রতি আমি কতটা দূর্বল। আমি আপনাকে কিছু বলবো না। সত্যি বলছি। র্স্পসও করবো না। শুধু দেখবো। আপনি যদি আমাকে এই সুযোগটি দেন তবে আমি আপনাকে পাঁচশত টাকা দেব। রমা সাকিরের দিকে তাকিয়ে আছে।
সাকির বুঝলেন না তো ? বুঝিয়ে বলছি। আপনার শরীরের অনেক অংশই আমি দেখেছি। যেমন বুকের অনেক টুকুই আমার দেখা। আপনি যদি আপনার একটি ব্রেষ্ট আমাকে দেখান তবে এই মুহুর্তে আমি আপনাকে পাঁচশত টাকা দেব। সত্যি করে বলছি আমি আপনাকে ছুবো না। আপনি দুর থেকে দেখাবেন। বলেই পাঁচশত টাকার একটি নোট বের করে টেবিলে রাখে। রমা লজ্জায় লাল হয়ে ওঠে। বৌদি চিন্তা করে দেখেন সুধু দেখাবেন তাতেই আপনার সমস্যা সমাধান। অন্য কেউ দেখছে না। শুধু আমি আর আপনি। কত সময়ইতো অসতর্ক মুহুর্তে এমনটি হয়। রমা কি ভেবে টেবিলে রাখা সাকিরের টাকাটা হাতে নিয়ে নিজের ব্লাউজের হুক খুলতে থাকে। সাকির অবাক দৃষ্টিতে চেয়ে থাকে পরবর্তী দৃশ্য দেখার জন্য। হুক খোলা শেষ হলে রমা দু হাত পিছনের দিয়ে ব্রা'র হুক খুলে দেয়। সাকির দেখে সামনের ফুলো দুটি ব্রেষ্ট একটু নড়ে ওঠে। রমা কোন দিক না চেয়ে ব্লাউজটি সরিয়ে একটি ব্রেষ্ট বের করে দেয়।সাকির মন্ত্র মুগ্ধের মত তাকিয়ে দেখে ওর এতোদিনের স্বপ্নে দেখা রমার পুষ্ট একটি ব্রেষ্ট। বেশ খাড়া ও পুষ্ট। ধবধবে সাদা মাংশ পিন্ডের মাঝে একটু খানি বাদামী রং এবং তার মধ্যে একটি কিসমিসের দানার মত একটি দানা বসানো আছে।
সাকির আবার পকেটে হাত দেয়। মানি ব্যাগ বের করে আরও একটি ৫০০ টাকার নোট বের করে টেবিলে রেখে বলে ওটা দেখালে এটা দেব। রমা ভাবে লজ্জা যা পাওয়ার তা তো পেয়েছি। এখন একটা আর দুটোর মধ্যে পার্থক্য কি ? টাকাটা একহাত দিয়ে নিয়ে দুটো ব্রেষ্ট বের করে দেয়। সাকির চোখ ফেরাতে পারে না। অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে দেখতে থাকে রমার সুন্দর্যমন্ডিত ব্রেষ্ট দুটি।
সাকির কতক্ষন তাকিয়ে ছিল তা বলতে পারবে না। যখন রমা ব্রেষ্ট দুটি ঢাকতে যাবে তখন বলে-প্লিজ ঢাকবেন না। তাড়াতাড়ী মানিব্যাগ বের করে ২ট ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-আপনি ওখানে দাড়িয়ে উপরের সব কাপড় খুললে এগুলো দেব। রমাকে যেন নেশায় পেয়েছে। ও সাকিরের হাত থেকে ছৌ মেরে টাকাটা নিয়ে উঠে দাড়িয়ে ব্লাউজ আর ব্রাটি খুলে পাশে রেখে দেয়। রমা যখন ওর ব্লাউজ আর ব্রা খুলছিল তখন ওর দু হাত উপরে উঠে যায়। সাকির  লক্ষ করে রমার ফরসা হাতের নিচে কালো লোমে ঢাকা বোগলতলার লোম গুলো চিক চিক করছে। রমার লোম দেখে সাকিরের  সেক্স ভীষণভাবে বেড়ে যায়। সাকির দেখে রমার খোলা দুধ দুটি বেশ বড় কিন্তু খুব সুন্দর। সাকির টেবিলে রাখা গ্লাস থেকে  এক নিঃশ্বাসে পানিটুকু খেয়ে ফেলে।
সাকির আবার মানি বেগে হাত দেয়। আরও ২টি ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-এবার নিচের জিনিসটি দেখালে এটা দেব। রমার যেন কোন দিকে খেয়াল নেই। সাকিরের হাত থেকে টাকাটি নিয়ে প্রথমে শাড়িটি খুলে ফেলে। সাকির আসল জিনিসটি দেখার জন্য উগ্রিব হয়ে বসে থাকে। তারপর রমা ওর পেটিকোটটি ধীরে ধীরে উপরের দিকে তুলতে থাকে। যতই উপরে উঠছে সাকির ততই উত্তেজিত হয়ে উঠছে। রমার ফরসা দুটি মোট মোটা মসৃন রান দেখতে পাচ্ছে সাকির। আরও একটু উপরে আরও। একসময় পেটিকোটটি মাজার সীমারেখা ছাড়িয়ে উপরে উঠে গেল। সাকির লক্ষ করলো রমার দুরানের মাঝে যে ত্রিকোনাকার জায়গাটি দেখার জন্য এতো ব্যকুল হয়েছিল সে জায়গাটি কালো লোমে ঢাকা পড়ে আছে। অনেক দিন সেভ করেনা বলে বেশ বড় বড় হয়েছে। দুর থেকে শুধু ছবির মত কালো জায়গাটিই নজরে পড়লো। সাকিরের নিঃশ্বাস ঘন ঘন পড়ছে। ও হঠাৎ বলে উঠে ঘুরে দাড়ান। কণ্ঠস্বর শুনে ও নিজেই যেন চিনতে পারছে না। এ যেন ওর কষ্ঠশ্বর নয়। রমা ঘুরে ওর দিকে পিছন দিয়ে দাড়ায়। সাকির দেখছে মাথা থেকে থরে থরে চুলের গোছা নেমে রমার পুরো পাছাটি ঢেকে ফেলেছে। চুলের ফাক দিয়ে রমার ফরসা ভরাট পাছাটি সামান্য দেখা গেল। রমা এবার আবার ঘুরে দাড়াল।
সাকির এবার শেষ তীর ছুড়লো। ওর ব্যাগ থেকে ৪টি ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-আমাকে খুশি করলে এটা পুরোটাই দিয়ে দেব। রমার অবস্থা তখন বেশ খারাপ। কারণ একজন পুরুষ মানুষের সামনে এভাবে একের পর এক বিবশ্র হওয়া খুব স্বাভাবিক কাজ নয়। রমা মুখে কিছু না বলে পেটিকোটটি ছেড়ে দিয়ে সাকিরের হাত থেকে টাকাটা নিয়ে নিল। শুধু টাকাটা ধরা পর্যন্ত সময়। এরই মধ্যে সাকির উঠে এক লাফে রমাকে জড়িয়ে ধরে রমার দুঠোটে চুমুতে চুমুতে পাগল করে ফেলল। রমার দুঠোটের মাঝে ও জিব ঢুকিয়ে দিয়ে দুহাত দিয়ে রমার শরীরকে দলিত মথিত করতে লাগলো। রমা এখন আর রমাতে নেই ও ভুলে গেছে ও কারও স্ত্রী। ও আদিম উন্মাদনায় সাকিরের ঢুকিয়ে দেয়া জিবটি চুষতে লাগলো। সাকির ইতিমধ্যে রমার পুষ্ট স্পঞ্জের মত ব্রেষ্ট দুটি ধরে চিপতে শুরু করেছে। রমাকে পাগলের মত বুকের মধ্যে পিষে ফেলছে সাকির। রমা ওকে একটু শান্ত হতে বলল। সাকির তখন উন্মাদ। ঠোট পেরিয়ে সাকির তখন রমার টকটকে সাদা ফুলকপির মত ফুটে থাকা ব্রেষ্টের বোটায় মুখ লাগিয়ে চুষতে থাকে। রমা আর সহ্য করতে পারে না। সাকিরের মাথাটি বুকের মধ্যে চেপে ধরে। সাকির তখন পেটিকোটের ভিতর হাত ঢুকিয়ে রমার আসল জায়গায় পৌছে গেছে। বেশ বড় বড় লোমের মধ্যে নাড়াচাড়া করতে করতে আরও নিচের দিকে আগায় সাকির। হঠাৎ অনুভব করে ওর হাত পিচ্ছল পানিতে ভরে গেছে। রমার নিচের অংশটুকু ভিজে চুপ চুপ করছে। সাকির ব্রেষ্ট চোষার ফলে রমা চরম উত্তোজিত হয়ে পড়ে। ও সাকিরের দন্ডটি ধরার জন্য হাত আগায়। কিন্তু সাকির প্যান্ট পরা থাকায় আর ধরতে পারে না। সাকির বুঝতে পেরে রমাকে পাজা কোলে করে বড় সোফাটাতে চিৎ করে শুইয়ে দেয়। তাড়াহুড়ো করে নিজের প্যাটটি খুলে ফেলে। এতোক্ষন বন্ধি অবস্থায় থাকা দন্ডটি ছাড়া পেয়ে সটাং করে বেরিয়ে ফোস ফোস করতে থাকে। এর মধ্যে উত্তেজিত রমা ওর পেটিকোটি খুলে পজিশন নিয়ে বেসে পড়ে। সাকির কাপড় খুলে রমার সামনে এসে দাড়াতেই রমা ওর নরম হাত দিয়ে সাকিরের উত্তেজিত দন্ডটি ধরে অবাক নয়নে দেখতে থাকে। সাকিরের দন্ডটি কি সুন্দর যেমন মোট তেমনি লম্বা আর ফরসা। অজিতের মত কালো কুচ কুচে নয়। রমা আদর করে ওর লিংগটি ধরে ওর নিজের ব্রেষ্টের সাথে মিলন ঘটায়। সাকির আর সহ্য করতে পারে না। রমাকে জাপটে ধরে শুয়ে পড়ে। রমা সাকিরকে বলে- আর পারছি না। যা করার তাড়াতাড়ী কর।
সাকির এবার উঠে রমার পায়ের কাছে গিয়ে ওর পাদুটো ফাক করে রমার বদ্বীপটির কালো জঙ্গল মধ্যে সুরঙ্গ পথ দেখতে পায়। সাকির তাকিয়ে দেখে রমার সুরঙ্গ পথে সাদা সাদা তরল পদার্থে ফেনার মত চপ চপ করছে। ঐ অবস্থা দেখে সাকিরের দন্ডটি আবার ফোস ফোস করে ওঠে। দন্ডায়িত দন্ডটি ধরে রমার সুরঙ্গ পথে একটু নাড়া চাড়া করতেই ওর দন্ডের মন্ডুটি ভিজে যায়। এবার রমার সুরঙ্গ মুখে সাকির ওর দন্ডটি ধরে চাপ দেয়।কোন বাধা না পেয়ে এক চাপেই পুরো টা ঢুকে যায়। এরপর শুরু হয় সাকিরের মাজা দোলানী খেলা। রমা নিচে থেকে মাঝে মাঝে উপরের দিকে চাপ দিয়ে মুখে আহ্‌ ইস্‌ শব্দ করতে থাকে। সাকির তখন অনুভব করে  মাল বেরিয়ে যাওয়ার সময় হয়েছে। হঠাৎ করে ও রমার যোনী থেকে ওর দন্ডটি বের করে ফেলে। রমা নিচে থেকে চেচিয়ে ওঠে-কি হলো বের করলে কেন ? সাকির বলে মজা করতে। এই বলে সাকির আবার রমার বুকে ঝাপিয়ে পড়ে ওর ব্রেষ্ট চুষতে থাকে। রমা সাকিরের মুখটি তুলে একটি চুমু দিয়ে বলে-লিক্ষিটি  আর পারছি না। আমার চরম সময় এসেছে প্লিজ ঢুকাও।
সাকির রমাকে তুলে ওর কোলে বসায়। রমা বুঝতে পেরে সাকিরের দন্ডিত দন্ডটি ধরে নিজের রসে ভরা যোনির মুখে স্থাপন করে একচাপে ভিতরে ঢুকিয়ে নেয়। রমা দুহাত দিয়ে সাকিরের গলা জড়িয়ে ধরে নিযের মাজাটি উপরে নিচে করতে থাকে। সাকিরের সামনে তখন রমার ফুটন্ত দুটি দুধ নড়তে থাকে। সাকির তখন রমার একটি দুধ মুখে নিয়ে চুষতে থাকে। রমা এবার নিজের মত করে মাজা নাড়িয়ে ওর সুখ ভোগ করতে থাকে। একটু পরে রমা একটি আর্ত চিৎকার দিয়ে সাকিরকে বুকের মধ্যে এমনভাবে চেপে ধরে যে সাকিরের নিশ্বাস ফেলা বন্ধ হয়ে যায়। সাকির চেষ্টা করে কিন্তু রমাকে সরাতে পারে না। রমা ওর সমস্ত শক্তি দিয়ে সাকিরকে নিজের বুকে চেপে ধরেছে। সাকির বুঝতে পারে রমার যোনির ভিতর এখন কি হচ্ছে। তাই নিজের একটু কষ্ট হলেও রমার জন্য ও এই কষ্টটুকু মেনে নেয়। একটু পরে রমা সাকিরের চেপে ধরা মাথা ছেড়ে দিয়ে হাপাতে থাকে। সাকির রমার মুখটি ওর মুখে চেপে ধরে আদার করতে থাকে। রমার কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম দিয়েছে। সাকির ঐ ঘামের গন্ধ উপভোগ করে। একটু দম নিয়ে রমা বলে তোমার হয়েছে ? সাকির মৃদ হেসে বলে না। রমা আর্ত চিৎকার করে বলে -হায় ভগবান ?
সাকির রমাকে কোলে থেকে নামাতেই রমা লক্ষ করে সাকিরের বিরাট আকারের দন্ডটিতে সাদা সাদা তরল পদার্থে চিক চিক করছে। রমা মুগ্ধ হয়ে দেখে। এবার সাকির রমাকে সোফার পাশে দাঁড় করিয়ে ওর দিকে পিছন ফিরে পাছাটি বের করে দিতে বলে। রমা আপত্তি করে। বলে ওভাবে আমি পারবো না। সাকির মিনতি করে বলে - কিছু হবে না। তোমার কোন অসুবিধা হবে না। কি ভেবে রমা রাজি হয়। মাথাটি নামিয়ে দুহাত ভেঙ্গে সোপার উপর উবু হয়ে দাঁড়ায়। সাকির পিছন দিক থেকে রমার ধব ধবে পাছাটি ধরে আদার করে ওর মাজার উপরে চাপ দেয়। এবার রমার পাছাটি আরও ফাঁক হয়ে পিছনের দিকে সরে আসে। সাকির এমনটিই চেয়েছিল। এবার রমার যোনির মুখটি দেখা যাচ্ছে। সাকিরের বুভুক্ষ দন্ডটি এবার রমার পিছন দিক দিয়ে রসে ভরা যোনির মুখে স্থাপন করে ধীরে ধীরে চাপ দেয় সাকির। রমা কিছু বলে না। সাকির পুরোটা ঢুকিয়ে এবার বার বার রমার মাজা ধরে নিজের মাজা দোলাতে থাকে। রমার যোনিপথটি পিচ্ছল তরল পদার্থে ভিজে থাকায় চপ্‌ চপ্‌ আওয়াজ বেরোতে থাকে। ঐ আওয়াজে সাকির আরও পাগলের মত বেশী করে মাজা দোলাতে থাকে। সাকির এবার রমার পিঠের উপর দিয়ে দুবোগলের পাশ দিয়ে রমার ব্রেষ্ট দুটি ধরে পিটতে থাকে। রমা পিঠের উপর চাপ সহ্য করতে না পেরে সোফায় উবু হয়ে শুয়ে পড়ে। সাথে সাথে সাকিরও রমার উপর পড়ে। ঠিক ঐ সময়ই সাকির ও রমা অনুভব করে সাকিরের দন্ড থেকে গল গল করে তরল পদার্থ বেরিয়ে এসে ভরে দেয় রমার যোনি। ওভাবে কিছুন থেকে উঠে পড়ে সাকির। একটু রেষ্ট নিয়ে বাথরুমের দিকে পা বাড়ায় সাকির। রমা আরও কিছুন ঐ ভাবে পড়ে থেকে পরে উঠে কাপড় পড়ে নেয়।

সাকির বাথরুম থেকে ফিট বাবু হয়ে বেরিয়ে এসে সোফায় বসে। রমা এরই মধ্যে সাকিরের জন্য এক গ্লাস লেবুর ঠান্ডা শরবত হাতে নিয়ে ঘরে ঢুকে। শরবত দেখে সাকির খুব খুশি হয়। বলে-এ জন্যই তোমাদে্র এতো ভাললাগে। কখন কি প্রয়োজন তা তোমরা ঠিক বুঝতে পার। রমা কিছু বলে না। শুধু মিষ্টি করে একটু হাসে। সাকির এক চুমুকে শরবতটুকু খেয়ে বলে এবার আসি ?
রমা মুখে কিছু বলে না, শুধু ঘাড় নেড়ে সায় দেয়। সাকির দাঁড়ায় বের হওয়ার জন্য। একটু এগিয়ে আবার ফি্রে দাড়িয়ে বলে-কিছু মনে করলে না তো ?
রমা তখনও কিছু বলে না। শুধু এগিয়ে এসে সাকিরের গালে একটি চুমু দেয়। সাকির সব বুঝতে পারে। ও রমাকে জড়িয়ে ধরে ওর মিষ্টি ঠোটে আরও একটি চুমু দিয়ে বলে-তোমাকে কোন দিন ভুলব না।

সাকির বেরিয়ে গেলে রমা দরজাটা লাগিয়ে  এসে ওর বিছানায় চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ে। চোখ বন্ধ করে ভাবতে থাকে-আহ্‌ কি সুখ। আজ কত দিন হয় ওদের বিয়ে হয়েছে কিন্তু এর আগে কোন দিন এমন সুখ পায়নি। নর-নারীর মিলনে এতো সুখ রমা ভাবতেই পারেনি। অনেকন ধরে ও সাকিরের শরীরের গরম অনুভব করে।
হঠাৎ পাশে তাকিয়ে দেখে ছেলেটি ঘুমিয়ে আছে। উঠে পড়লে আর কাজ করতে পারবে না। তখনই ঝাড়া দিয়ে উঠে বাথরুমে ঢুকে সাওয়ারের ছেড়ে গুন গুন করে গান গাইতে থাকে। এমন আনন্দ যেন আর কখুনও পায়নি রমা। খুব সুন্দর করে গোসল সেরে বেরিয়ে এসে আয়নার সামনে দাঁড়ায় রমা। ও যেন এক নতুন রমা। ওর নিজের কাছেই ওকে ভাললাগে। সিঁথিতে সিদুর দিতে দিতে অজিতের কথা মনে পড়ে। মনটা খারাপ হয়ে যায়। তাড়াতাড়ী রান্না ঘরে যায়।
বিকেলে অজিত বাসায় ফেরে। খাওয়া দাওয়া সেরে অজিত বিছানায় গিয়ে আরাম করে। এরই মধ্যে বাচ্চাটাও অজিতের কাছে গিয়ে খেলা শুরু করেছে। রমা কাজ সেরে গুন গুন করে গান গাইতে গাইতে ঘরে ঢুকে। অজিত রমার মুখে গান শুনে বলে-কি ব্যাপার আজ  মন এতো খুশি ? লটারীর টাকা পেয়েছ নাকি ?
হঠাৎ অজিতের মনে পড়ে টাকার কথা। বলে-রমা সাকির এসেছিল নাকি ?
রমা আচমকা সাকিরের নাম শুনে ঘাবড়িয়ে যায়। কি বলবে ? মিথ্যা বলবে ?
হা এসেছিল।
আহ্‌ বাঁচা গেল। টাকাটা দিয়ে গেছে তো ?
কিসের টাকা ? রমা অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করে।
কয়েকদিন আগে সাকির আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা ধার নিয়েছিল। আজ দেবার কথা। দিয়েছে নিশ্চই ?
রমার মুখে কোন কথা ফোটে না। অস্ফুষ্ট কন্ঠে বলে ওঠে-হাঁ।

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*