Monday, August 4, 2014

বৌদি, আমার অফিসে বসে

আমার নাম স্বপ্না, ৩১ বছর বয়স, বিবাহিতা,আমার বরের নাম সঞ্জয় রায়, কলকাতার এক অভিজাত অঞ্চলে বসবাস করি, আর আমাকে কেমন দেখতে? লোকে বলে, আমার রূপ যৌবনের কাছে হিন্দী সিনেমার হিরোয়িন মল্লিকা সেরাওয়াত হার মেনে যাবে, আমাদের বিবাহিত ও যৌন জীবন খুব সুখের ছিল এবং আমি বিশ্বাস করতাম যে বিবাহিতা মেয়েদের যৌন জীবনে একজন পুরুষের উপস্থিতি যথেষ্ট,কিন্তু কোনো এক ঘটনা আমার এই মানসিকতাকে একেবারে বদলে দেয়, আজ আমি তোমাদের সেই ঘটনাটাই বলতে এসেছি ! এই ঘটনাটা আজ থেকে প্রায় দু বছর আগে আমার স্বামীর এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু রাজের সাথে
ঘটেছিল,খুব সুন্দর হ্যান্ডসাম সুপুরুষ এবং সুস্বাস্থের অধিকারী রাজকে আমি আমাদের বিয়ের পর পর থেকেই চিনি আর রাজের সৌন্দর্য, সুস্বাস্থ্য আর ব্যবহার আমাকে বেশ আকর্ষিত করতো আর, রাজ যে আমার সৌন্দর্যের পুজারী ছিল সেটা তার কথাতেই প্রকাশ পেত, কিন্তু কোনো সময়তেই আমাদের মধ্যে এমন কোনো কথা হতো না যা আমাদের বিবাহিত জীবনের পক্ষে ক্ষতিকারক হতো, জীবন এভাবেই চলে যাচ্ছিল, কিন্তু দু বছর আগের ঘটা ঘটনাটি আজ আমি তোমাদের, শুধু তোমাদেরই বলছি, বিশ্বাস কোরো আজ পর্যন্ত আমার স্বামী বা রাজের বউ কেউই এই ঘটনাটা জানে না, আর আমার স্বামী আজও মনে করে আমি ওর সতিলক্ষী সাদাসিধা বউ, যাই হোক গল্পতো অনেক হলো এবারে আসল ঘটনাতে আসা যাক। রাজ একটি বড়ো ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের মালিক ছিল আর আমাকে ওর দোকানে প্রায়ই সংসারের নানান জিনিস কেনার জন্য যেতে হতো, এরকমই একদিন দুপুরে আমি কিছু জিনিস কেনার জন্য রাজের দোকানে দিয়ে দেখি দোকান বন্ধ, আর দোকানের পাসে দাঁড়িয়ে আছে, আমাকে দেখেই রাজ বলে উঠলো ” আরে স্বপ্নাবৌদি কি ব্যাপার”? আমি বললাম ” আপনিতো ভাই দোকান বন্ধ করে দিয়েছেন , কিছু জিনিস কিনতাম, ঠিক আছে বিকেল বেলাতে আসবো “, ” বউদি আজতো সাপ্তাহিক বাজার বন্ধের দিন তাই আমার দোকানও বন্ধ, কিছু জরুরি কাজ ছিল তাই দুতলার অফিসে কাজ করছিলাম, সিগারেট কিনতে নিচে এলাম আর আপনাকে দেখতে পেলাম” “ওহ আমি একেবারে ভুলে গেছিলাম” আমি বললাম, “কোন চিন্তা নেই বউদি, আমি তো আছি, আপনার জন্য আমার দোকান সব সময় খোলা, আসুন আসুন”, এই কথা বলে রাজ দোকানের গেট খুলে দিল, আমি দোকানে ঢুকে প্রয়োজন মতো জিনিস কিনে বেরিয়ে আসার সময় রাজ বলে উঠলো ” বৌদি, আমার অফিসে বসে একটু কোল্ড ড্রিন্ক খেয়ে যান” , যেহেতু রাজ আমাদের দুজনেরই বন্ধু আর খুব ভদ্র তাই আমিও কোনো আপত্তি করলাম না, আমি বললাম “ঠিক আছে রাজ, আপনি ড্রিন্ক আনান আমি পাশের মেডিসিনের দোকান থেকে কয়েকটা প্রয়োজনীয় জিনিস কিনে দু মিনিটের মধ্যে আসছি” “ও.কে. বৌদি”……….. পাশের মেডিসিনের দোকান থেকে কয়েকটা জিনিস কিনে আমি রাজের দোকানের সামনে আসতে দেখি রাজ দোকানের পাশে আমার জন্য অপেক্ষা করছে, আমি রাজকে বললাম “আমি বললাম তো আমি আসছি আপনি আবার আমার জন্য দাড়িয়ে আছেন” রাজ বলে ” আসলে আমার অফিস তো দোতলায় আপনি চিনবেন না , তাই দাড়িয়েছিলাম আর বৌদি এখন দুপুর দুটো, আমি তাই আমার আর আপনার লাঞ্চের জন্য পাশের হোটেলে অর্ডার দিয়ে দিয়েছি, কিছু মনে করলেন না তো”? এই সময়তে বাড়িতে সেরকম কোনো কাজ না থাকায় আমি রাজকে বলি ” ঠিক আছে, কোনো সমসস্যা নেই” কিন্তু সমসস্যা তখন হলো যখন দোতলায় যখন আমরা গোল লোহার সিড়ি দিয়ে উঠছিলাম, এত ছোট সিড়ি আর এত বিপদজনক যে আমাদের শরীর একে অন্যের গায়ে ঠেকে যাচ্ছিল, তাই ভয়ে আমি রাজের হাত চেপে ধরে উঠছিলাম, একবার তো আমি সিড়িতে পা ফেলতে গিয়ে পিছলে গেছিলাম. রাজ কোনো মতে আমাকে ধরে সেযাত্রা আমাকে বাঁচিয়ে দেয়, কিন্তু এই সময়ে আমার নাক প্রায় রাজের মুখের কাছাকাছি পৌছে যায় আর আমি রাজের মুখ থেকে হাল্কা মদের গন্ধ পাই, কিন্তু তখন আমি ভাবলাম এই ভর দুপুরে ও কি মদ খাবে? তারপরে দোতলায় উঠে দেখি, গোটা দুতলা একেবারে ফাঁকা আমি আর রাজ ছাড়া কেউ নেই, যেহেতু রাজের অফিসও তখন একেবারে ফাঁকা, আমার মাথায় হটাত একটা চিন্তা এলো যে এখন যদি আমার বর আমাকে আর রাজকে এইরকম একদম একা অবস্থাকে রাজের অফিসে দেখতো তাহলে কি না কি ভাবতে শুরু করতো, কিন্তু এখন এসব ভেবে কি হবে, এখন আমি আর রাজ, রাজের ফাঁকা অফিসে বসে কথা বলছি, গল্প করছি এটাই ঘটনা, এসব ভাবতে ভাবতেই আমি রাজের অফিস ঘরটি দেখতে শুরু করি, বেশ ছিমছাম সুন্দর করে সাজানো রাজের অফিসটি, সেন্টার টেবিল, সোফা কাম বেড, বুক সেল্ফ প্যানট্রি, বাথরুম সবই আছে, এরই মধ্যে রাজ এ.সি.চালিয়ে রুম ফ্রেস্নার দেওয়াতে ঘরের পরিবেশও খুব সুন্দর হয়ে উঠেছে, আমি আর রাজ বেশ কিছুক্ষণ দুজনের পারিবারিক আলোচনা করি আর আমি লক্ষ্য করি রাজ একজন খুব ভালো শ্রোতাও, কথা বলতে বলতে আমরা দুজনে কখন যে আপনি থেকে তুমিতে চলে এসেছিলাম তাও বুঝতে পারিনি,এর মধ্যে রাজ আমাকে বলে আমি এখন কি খাব, যেহেতু অনেকটা হেটে দুপুর বেলাতে রাজের দোকানে এসেছিলাম তাই আমি বলি আগে আমি একবার বাথরুমে যাব এবং তারপরে কোল্ড ড্রিন্ক নেব, রাজ সোফা থেকে উঠে আমাকে বাথরুমের দিকে এগিয়ে দেয় আর কোল্ড ড্রিন্ক বানানোর জন্য নিজে প্যানট্রির দিকে এগিয়ে যায়, আমি বাথরুমে গিয়ে বেসিনে মুখ হাত ধুয়ে নিজেকে ভালো করে পরিস্কার করে ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে মেক আপ কিট বের করে হাল্কা মেকাপ করাতে তখন নিজেকে আরো ফ্রেশ লাগছিল, বাথরুম থেকে বেরিয়ে এসে দেখি টেবিলে দুটো কোক ভর্তি গ্লাস নিয়ে রাজ আমার জন্য অপেক্ষা করছে, সোফাতে বসে বসে কোকের গ্লাসে ছোট ছোট চুমুক দিতে দিতে আমরা আবার গল্প শুরু করি, খুব সুন্দর লাগছিল তখন, এই প্রথম একটা ঘরে বসে আমি আর রাজ দুজনে সম্পূর্ণ একা,, এত সুন্দর পরিবেশ, আমার মনে হচ্ছিল, থেমে যাক না সময়, এত সুন্দর একটা মুহূর্ত, তাড়াতাড়ি যেন না চলে যায়, ঠিক এই সময়ে রাজ আমাদের গল্পের বিষয় পাল্টে দিয়ে আচমকা বলে উঠলো, আমার হাসব্যান্ড খুব লাকি, আমি তাকে বলি কেন তুমি এই কথা ভাবছো? তখন সে বলে ওঠে “তোমার মতো সুন্দরী বউ যার সে লাকি না হয়ে হয়ে কি হবে”? আমি বুঝতাম রাজ আমাকে পছন্দ করে, কিন্তু হটাত ওর মুখ থেকে সোজাসুজি এই কথা শুনে আমার ফর্সা গালটা যে আরো গোলাপী হয়ে গেল তা আমি নিজেই বুঝতে পারছিলাম, কিন্তু রাজের মুখ থেকে আমার রূপের কথা আরো শোনার জন্য আমি বললাম,” আমার মধ্যে এমন কি দেখলে তুমি যে এরকম বলছো”? রাজ বলে ওঠে ” না বৌদি, তুমি একজন সাধারণ মেয়ে নও, তুমি এত সুন্দর, এত সুন্দর, যে, যে কোনো পুরুষ তোমায় একবার দেখলে, শুধু দেখতেই থাকবে, তোমার দিক থেকে চোখ ফিরিয়ে নেবে, এরকম হতভাগ্য এখনো এ পৃথিবীতে জন্মায়নি”, রাজের মুখ থেকে এই কথা শুনে আমার মনে হলো আমার গালটা গোলাপী থেকে লাল হয়ে গেল, মনে হলো আমার সারা শরীরে কারেন্ট পাশ করলো, এই রকম মন্তব্য আমার বর-ও কোনদিন আমার সম্বন্ধে করেনি, তাই আমি রাজের মুখ থেকে আরো কথা শোনার জন্য বললাম , ” এই রাজ তুমি কি যা তা বলছো, তুমি আমাকে ভালো চোখে দেখো তাই তুমি এসব বলছো , আসলে কিন্তু আমি একেবারে একজন সাধারণ দেখতে একটা মেয়ে মাত্র”, রাজ বলে ওঠে “কে বলেছে বৌদি, তুমি একজন সাধারণ মেয়ে, তুমি, তুমি হচ্ছো সকলের থেকে একেবারে আলাদা, এই বয়সেও তুমি তোমার ফিগারকে এত সুন্দর রেখেছ যে তোমাকে দেখলে হিন্দী সিনেমার মডেল মনে হয়, আর আমি তো জানি তুমি ফিগারকে সুন্দর করবার জন্য যোগাসন কোরো সুইমিং পুলে গিয়ে সাঁতার কাটো, আমি আর থাকতে না পেরে বলে উঠলাম ” বাবা, আমার সম্পর্কে এত খোঁজ রাখো তুমি”? আর মনে মনে চিন্তা করলাম যে যখনি আমি কোনো দিন সেক্সি ভাবে লো-কাট ব্লাউস এর সাথে ট্রান্সপারেন্ট শাড়ী পড়ে কোনো পার্টিতে গেছি আর রাজও সেখানে থেকেছে, ওর দৃষ্টি সব সময়তে আমার দিকেই থাকতো, এর পড়ে রাজ সাধারণ ভাবে আমাকে বলে “বৌদি তুমি কি কি কিনেছে আমি কি একটু দেখতে পারি”? আমি কিছু না মনে করে সোফা থেকে উঠে কোনে রাখা সপিং ব্যাগ তা নিয়ে ঘুরতেই দেখি রাজ এতক্ষণ আমার লো-কাট ব্লাউসের মধ্য থেকে এক দৃষ্টিতে আমার খোলা পিঠকে দেখছে আর আমি ঘুরতেই ওর নজর সোজা আমার বুকে আর মেদহীন পেটের দিকে পরলো, আমি কিছুটা অস্বস্তিতে পড়ে গিয়ে শাড়ী দিয়ে আমার মেদহীন পেটকে ঢাকার চেষ্টা করলাম, কিন্তু আমার সেই প্রচেষ্টাও সফল হলনা এবং আমি দেখলাম রাজ আমার দিকে তাকিয়ে এক অদ্ভুত ছোট্ট আর অর্থপূর্ণ হাসি হাসলো, যার অর্থ আমি তখন বুঝতে পারিনি, এর কিছু পড়ে রাজ আমাদের জন্য আবার কোক আনতে প্যানট্রির দিকে যেতেই আমি চটপট উঠে আমার শাড়ী ঠিক করবার চেষ্টা করি, যখন বুক খোলা অবস্থাতে গোটা শাড়ীর আঁচল হাতে নিয়ে আমি শারীটা বুক ও পেটকে ঢাকার চেষ্টা করছি, ঠিক তখনই রাজ প্যানট্রি থেকে কোক হাতে ঘরে ঢোকে আর আমার শরীরের সামনেটা তখন পুরোপুরি রাজের সামনে উন্মুখত, আমি খুব লজ্জা পেয়ে কোনো রকমে আমার ৩৫-৩১-৩৬ শরীরকে শাড়ী দিয়ে ঢেকে রাজকে ” দুঃখিত” বলাতে, রাজ আবার সেই ছোট্ট আর অর্থপূর্ণ হাসি হেঁসে আমাকে বলে ওঠে ” কোনো ব্যাপার নয়, এত আমার সৌভাগ্য” , আমি রাজের দিকে তাকিয়ে হেঁসে সোফাতে বসলাম আর রাজ কোল্ড ড্রিন্ক নিয়ে আমার কাছাকাছি এসে বসলো, এতটা কাছাকাছি যে আমাদের একে অপরের পা পর্যন্ত মাঝে মাঝে ঠেকে যাচ্ছিল, আমি নিজেকে স্বাভাবিক দেখানোর জন্য এক চুমুকে কোকের গ্লাসটা খালি করে দিলাম, কিন্তু, খাওয়ার পড়ে মনে হলো কোকের স্বাদটা কিরকম আলাদা হয়ে গেছে, মনে হোল কোকের গ্যাসটা বেরিয়ে গেছে বলে বোধ হয় এরকম স্বাদ, কিন্তু এরকম? যাইহোক কিছুক্ষণ পড়ে আমার মনে হলো আমার শরীরটা কি রকম করছে, কি রকম একটা অসস্তিকর, হয়তো এতক্ষণ রোদ্দুরে পড়ে এ.সি.রুম এ বসার ফলেই বোধ হয়তো এরকম হবে, কিছুক্ষণের মধ্যেই ঠিক হয়ে যাবে, রাজ আমার আর নিজের খালি গ্লাস নিয়ে আবার প্যানট্রির দিকে গিয়ে আবার গ্লাস ভর্তি কোক নিয়ে ফিরে এলো, আমি ওকে বোঝাবার চেষ্টা করি আমার ভালো লাগছে না , শরীর খারাপ লাগছে, কিন্তু রাজ বলে ওঠে ” আরে বৌদি বাইরের রোদ্দুরের জন্য তোমার শরীর খারাপ লাগছে একচুমুকে ড্রিন্কটা শেষ করো, শরীর ঠিক হয়ে যাবে”, আমি আবার এক চুমুকে গ্লাসটা শেষ করলাম, কোকের স্বাদটা ঠিক আগেকার মতো, আবার কিছুক্ষণ পড়ে রাজ আমাদের জন্য গ্লাস ভর্তি কোক নিয়ে এলো, আমি বললাম ” রাজ কোকের স্বাদটা ভালো নয়, কি রকম বাজে টাইপের গন্ধ মনে হচ্ছে” রাজ বললো তার কিছু মনে হচ্ছে না কিন্তু আমি যদি মনে করি তাহলে সে আবার নতুন একটা বোতলের ঢাকা খুলতে পারে, আমি বললাম তার কোনো দরকার নেই, কিন্তু আমার শরীরটা কিরকম হাল্কা লাগছিল আর মাথাটাও কিরকম ভারী হয়ে যাচ্ছিল, তাই আমি সোফা থেকে উঠে পড়ে রাজকে বললাম ” রাজ আমার শরীর একদম ভালো লাগছে না, আমি বাড়ি যাবো”, কিন্তু ও আমার হাত ধরে ওর পাশে বসিয়ে আমার থাই এর উপরে নিজের হাত রেখে বললো যদি শরীর খারাপ লাগে তাহলে এখানেই রেস্ট নিয়ে, শরীর ঠিক হলে তারপরে যাবার জন্য, আমি বসতেই রাজ আমাকে বললো

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*