Saturday, March 8, 2014

আরেকবার টিপতেই মৃদু বিরক্তি প্রকাশ করলো

ফুফু তখনও জেগে, বিছানায় বসে মাথায় চুল ডলে দিচ্ছে দীর্ঘদিনের ভৃত্য পরী। তেল দেওয়া মানে হাতের তালুতে তেল নিয়ে চান্দিতে ঘষা, তারপর একগোছা চুল নিয়ে এদিক সেদিক। আমাকে দেখে বললেন, “কি রে ঘুম আসে না।” আমি মৃদু মাথা নেড়ে খাটের উপর বসলাম, পরী এখন প্রতি চুলের গোছায় টেনে টেনে তেল মাখাবার চেষ্টা করছে। ফুফু’র চুল তেমন লম্বা নয়, তেল মাখাবা’র কাজ খুব কষ্টের হওয়ার কথা না, তবুও পরী’র মনোযোগ বিরক্তি ধরানোর মত। এই পরী অনেকদিন যাবৎ আছেন ফুফু’র সাথে, পরপর দুইবার মৃত বাচ্চা প্রসব করার পর স্বামী যখন ঘর থেকে বের করে দেয়, এক কাপড়ে আশ্রয় নিতে ফুফু’র দুয়ারে হাজির হয় পরী। বয়স খুব বেশি না হলেও হাড়ভাঙ্গা খাটুনি আর অনিশ্চিত ভবিষ্যতের চিন্তা বুড়িয়ে ফেলেছে চল্লিশ পেরোবার আগেই। “কি রে মাথায় তেল দিবি?” আমার চিন্তায় ছেদ ঘটালো ফুফু। আমি আবার ও মৃদু মাথা নেড়ে অসম্মতি জানালাম। – ক্যান চুলে তেল দিলে কি হয়? – মাথা ব্যথা করে। – চুলে তেল দিলে মাথা ব্যথা করে, কেমন মাথা তোর। – তোমার তেলের যা গন্ধ, নাকে আসলেই মাথা ব্যথা করে। চুলে তেল দেয়া এখন শেষ, পরী এখন তেল ঘষছে ঘাড়ের উপর। আঙ্গুলগুলো তেলে ডুবিয়ে খাবলে ধরছে কাঁধের মাংশ, তারপর তালু দিয়ে ডলে চলেছে পুরো কাঁধময়। “আঁচল সড়ান, তেল ভরব।” যেন ইঙ্গিতে বললো পরী। ফুফু কাধ থেকে আঁচল নামিয়ে বুকের উপর গুজে রাখলেন। ধীরে ধীরে
খাবলাখাবলি’র পরিমান আরো বেড়ে গেল, নিপুন দক্ষতায় ঘাড় পিটিয়ে যাচ্ছে পরী। ফুফু মনে হয় বেশ আরাম পাচ্ছেন, চোখ বন্ধ করে শুষে নিচ্ছে এমন দুমড়া দুমড়ি। “কি রে বডি বানাবি?” আমি চোখ তুলে তাকালাম, ফুফুর ঠোটের কোনে দুষ্টুমি’র হাসি। খানিকটা লজ্জা পওয়ার ভঙ্গি করলাম, তবে এ লজ্জা’র কারণ ‘বডি বানানো’ নয়। মালিশের তালে হালকা দুলছে ফুফু’র বুক, ব্লাউজ বিহীন শাড়ি’র নিচে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে প্রশস্ত স্তনযুগলের বৃস্তিতি। – তুই এমন লজ্জা পাচ্ছিস ক্যান? – লজ্জা পাব ক্যান। – এই হাত দিয়া ন্যাংটা করে কত তেল মালিশ করায়ছি আমি, আর এখন বুড়া হইছস। আমি আসলেই খানিকটা লজ্জা পেলাম, তার হাত আমার শরীর ডলছে ভাবতেই গা গুলে এলো। তবে ফুফু থামলেন না, “তোর মা তো দুধ নামায় থুইয়া দৌড় মারত অফিসে, সারাদিন থাকতি আমাগো হাতে। আর তোর যা আল্লাদ, পেট খালি হইতে না হইতেই ফ্যা………… কান্দন শুরু। কতদিন ব্লাউজ খুইলা বোটা গুঁইজা দিছি তোর মুখে।” আমি ওই দুধজোড়া চুষতে পারছি, ভাবতেই মুণ্ডী খাড়া হয়ে গেল। মুখ বাচাতে মাথা এলিয়ে দিলাম ফুফু’র গায়ের উপর। ফুফুও বগল তুলে আমাকে টেনে নিলেন, কাঁধ গিয়ে ঠেকলো বগলের চুলের উপরে। ভিজে জবজবে বগল থেকে দুর্বীসহ গন্ধ আসছে, আমি কোনো রকমে গা জড়িয়ে নিজেকে আরো সেটিয়ে দিলাম। – ফুফু, জঘন্য গন্ধ আসছে তোমার বগল থেকে। – এখন তো আমার গন্ধ ভালো লাগবেই না, কত নতুন মেয়ে আসছে, তাগো গন্ধ শুকতে শুকতেই তো দিন যায়। আমি আবার লজ্জাও পেলাম, আমার দুরাবস্থা দেখে পরী’র মুখেও হাসি। নাক বসিয়ে দিলাম ফুফু’র হাতের উপর, ঘষে নিয়ে চললাম বগলের কাছাকাছি। “থাক আর আল্লাদ দেখাতে হবে না” ফুফু হাত দিয়ে মুখ সরিয়ে দিলেন। আমি পিছপা হলাম না, বাম হাত ঢুকিয়ে দিলাম শাড়ি’র আচলের নিচে, খপ করে ধরে ফেললাম এক স্তনের বোটা। ছোঁক ছোঁক করে উঠলেন ফুফু, “কি রে আমি তোর বউ নাকি, রাত বিরেতে দুধ টিপতাছোস মানে।” খুব চটুল উত্তর দিলাম, “পুরাতন অভ্যাস ফুফু।” “ধুর হারামজাদা” এক ঝটকায় সরিয়ে দিলেন ফুফু। পরী’র হাসি আকর্ণ বিস্তৃত হয়েছে, ফুফু’র মুখে নিতান্তই তাচ্ছিল্ল্যের সুর, “রাত বিরেতে রস উঠছে হারাজাদা’র।” পরী’র মালিশের পরিধি কাঁধ ছাড়িয়ে হাতে গিয়ে পড়েছে, এক হাত নিজের কাঁধে তুলে গোড়া থেকে বানিয়ে চলেছে আঙ্গুল পর্যন্ত। মাঝে একবার হাত টেনে পিঠের উপর মটকানো’র চেষ্টা করলেন, কিন্তু সে চেষ্টা পর্যবষিত ছোটো এক আর্তস্বরে। “ফুফু আমি তোমার হাত টিপি।” “না………” ফুফু কথা শেষ করার আগেই আমি একহাত তুলে নিলাম, পরী’র মত গোড়া থেকে শুরু করলাম পেশী খাবলানো। দু’হাত দিয়ে রিঙ করে টেনে নিয়ে চললাম কব্জি পর্যন্ত, তারপর আঙ্গুলগুলো এক একে নিয়ে মটকে দিলাম তালু’র মাঝে ভরে। আরামে চোখ বন্ধ করে আছেন ফুফু, ” ভালই তো শিখছিস।” কথা বাড়ালাম না, আবারও শুরু করলাম গোড়া থেকে থেকে। তবে এবার গোড়া শুরু হলো আরো নিচে থেকে, মালিশের ভঙ্গিতে একবারে ছুয়ে দিলাম ভিজে জবজবে বগল। ফুফু’র চেহারায় কোনো ভাবান্তর নেই, আগের মতই আছেন চক্ষু মুদে। পরেরবার সাহস আরেকটু বাড়িয়ে হাতড়ে গেলাম দুধের কাছাকাছি। আঁচলখানি একটু সরিয়ে দু’আঙ্গুলের ফাকে নিয়ে নিলাম কালচে দুধের বোটা, পূর্ণদৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে পরী আমার আঙ্গুলের উপর। আঙ্গুলের কারসাজি দেখাতে তর্জনী একবার ঘুরিয়ে আনলাম areola’র উপর, বোটা ঢুকিয়ে নিলাম তর্জনী আর বৃদ্ধাঙ্গুলি’র মাঝামাঝি, ধীরলয়ে চাপতে শুরু করলাম পাঁচ আঙ্গুল এক করে। এবার পরী’র আগ্রহ উৎসাহে পরিনত হয়েছে, চোরাদৃষ্টিতে বারেবারে দেখছে আঙ্গুলের লীলাখেলা। আরেকটু দেখিয়ে বোটা চিমটে ধরলাম দু’আঙ্গুল দিয়ে, একবার তুলে আবার ছেড়ে দিলাম মুঠো’র মধ্যে। ব্যাপারটা পরী’র মধ্যে কতখানি চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করলো জানি না, তবে ফুফু নড়েচড়ে বসলেন। আমি দুধ ছেড়ে দিলাম, আবারও মনোনিবেশ করলাম হাতের উপর। “এই পরী, ওর গা একটু ডইলা দেতো” “জ্বী” “আমার হইছে, ছাড়।” পরী’র মুখ থেকে রক্ত সরে গেছে, নিশ্চল বসে আছে পাথরের মত। ফুফু আবার ঝাড়া দিল, “খাড়ায় রইলি ক্যান?” পরী ধীরে এগিয়ে এলো আমার দিকে, আঙ্গুল তেলে চুবিয়ে ঘষতে লাগলো আমার ঘাড়ে। ঠান্ডা আঙ্গুলের স্পর্শে বিদ্যুত খেলে গেল শরীরে, মাথা’র পিছনে তাঁর নিশ্বাসের শব্দ শুনতে পাচ্ছি। “তুই গেঞ্জি পইরা আছিস কোন আক্কেলে, গেঞ্জি খুইলা উপুর হইয়া শো। পরী তোর গায়ে তেল ডইলা দিব।” গেঞ্জি খুললাম ঠিক ই কিন্তু উপুর হওয়া হল না, তার আগেই পরী তেল ডলতে শুরু করলো পিঠের উপর। দু’ পা দুই দিকে বাড়িয়ে অসীম দক্ষতায় খাবলে যাচ্ছে পিঠের উপরের মাংশ, আরেকটু তেল ভরিয়ে বগলের উপর আঙ্গুল চালনা করে দিল। সুরসুরিতে নড়ে উঠলাম, কুনুই বাড়িয়ে দিলাম পিছনের দিকে। মহিলা আগেই বুঝতে পেরেছিলো মনের অভিসন্ধি, খানিকটা সরে এড়িয়ে গেলেন স্তনের উপর আগ্রাসন। এক হাত তুলে নিলেন কাঁধের উপর, ফুফু’র মতই পেশী পিষতে লাগলেন বগলের উপর থেকে। এই প্রথম পূর্ণগোচরে এলো পরী’র বুক, ফুফু’র মত ঝুলে না পড়লেও শেপ খুব ভালো না। আরেক হাত বাড়িয়ে ছোঁবার চেষ্টা করলাম, কিন্তু তার আগেই ফুফু’র গমগমে আওয়াজ, “আয় এসব কি।” পরী অসহায়ের মত তাকালো ফুফু’র দিকে, স্বীয় অস্ত্র সংবরণ করলাম, জিরোতে দিলাম আরো কিছুক্ষণ। পরেরবার শুরু করলাম একদম বেসিক থেকে, কাঁধের উপর থেকে আঁচল নামিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলাম। নামল না ঠিক ই, কিন্তু তড়িঘড়ি করে বুক ঢাকতে ব্যস্ত হয়ে গেল শাড়ি দিয়ে। তখনি আক্রমন চালালাম, পিছন থেকে জড়িয়ে ধরলাম বুকের উপর। বিস্ময়ে ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করলেন ঠিক ই, কিন্তু তার আগেই হাত ঢুকিয়ে দিয়েছি বগলের ফাকে, ব্লাউজের উপর থেকেই চাপতে শুরু করেছি বিপুল বিক্রমে। সাহায্যের আশায় তাকালো ফুফু’র দিকে, ফুফু’র ঠোটের কোনে মৃদু হাসি, যেন তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করছেন বাঘ- হরিনের দৃশ্য। বুঝলো একটু ছাড় দিতেই হবে, বেশি মোচড়ালে ফাঁস আটকানো’র সম্ভাবনাই বেশি। সুযোগ পেতেই আঙ্গুল চালনা করলাম ব্লাউজের বোতামের উপর, পটপট শব্দে খুলে ফেললাম, টেনে হিঁচড়ে বের করে আনার চেষ্টা করলাম বুকের উপর থেকে। অসহায় পরী অস্ফুট এক শব্দ করলো “ছিঁড়া যাইব।” ক্ষনিকের জন্যে থিতু হলাম, তারপর ঠোট নামিয়ে চুষতে শুরু করলাম দুধের খয়েরি বোটা। এইবার বাঁধা না দিয়ে ফুফু’র দিকে তাকালো, কটমট চোখে তার জবাব দিলেন ফুফু। ঘটনাপ্রবাহে হতবাক পরী, হাজার হোক ফুফু তার পুরনো মালকিন। কাঁধের সাহায্যে মৃদু ধাক্কা দিলাম, বেসামাল হয়ে পড়ে গেল খাটের উপর। পাথরের মত মুখ করে তাকিয়ে আছেন আমার দিকে, বুঝলো আমার শান্তি অসাপেক্ষে তার এই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি নেই। বুকের উপর উঠে দু’হাতের মুঠোয় নিয়ে নিলাম, পাগলের মত চুষতে শুরু করলাম। এবার কোনো বাধা দিল না, বরং হাতজোড়া মাথা’র নিচে গুঁজে বগল যেন উঁচু করে ধরলো আমার দিকে। ব্লাউজ সড়িয়ে বগল চাটতে শুরু করলাম, ধারালো চোখে তাকিয়ে আছে আমার দিকে। আমি ভ্রুক্ষেপ করলাম না, বাহু’র উপর চেপে ধরে পুরো মাখিয়ে দিলাম বগলের চারপাশ। দুধের বোটা ঠাঁটিয়ে চরাকগাছ, আরেকবার টিপতেই মৃদু বিরক্তি প্রকাশ করলো। নাভী’র মধ্যে আঙুল দাবিয়ে নেমে এলাম নিচের দিকে, শাড়ী তুলে চুমু খেলাম হাঁটু’র উপর। পরী বাধা দেয়ার চেষ্টা করল, কিন্তু জোর করে পা ফাক করালাম, চাটতে লাগলাম কুচকি’র কাছাকাছি। পুরোনো বনজঙ্গল, ফাঙ্গাস পড়ে খানিকটা গন্ধ হয়েছে বৈ কী, এরই মধ্যে গাইতি চললাম, জিহ্বা দিয়ে ভিজিয়ে দিলাম খড়খরে রুদ্রাঞ্চল। পরী দুই পা মেলে দিল, নাচতে নেমে ঘোমটা দেয়ার কী দরকার। একহাতে যোনি চেপে ধরে ঠোট চেপে ধরলাম কুচকি’র উপরে, দাত দিয়ে মৃদু কামড়ে দেয়ার চেষ্টা করলাম আগাছাবিহীন বিরণাঞ্চল। কিছুটা কঁকিয়ে উঠলেন, দু’পা এক করে সাড়া দিলেন চাঙ্গানো যৌনেচ্ছার। আবার দুইহাত দিয়ে পা’জোড়া ফাঁক করলাম, তুলে ধরলাম পাছা’র ফুটা পর্যন্ত, আঙুল বসিয়ে দিলাম আড়াআড়ি ঠোটের উপর। জিহ্বা দিয়ে টেনে চেটে তুললাম গড়িয়ে পর রস। অদ্ভুত শব্দ করলেন ফুফু, “ওয়াক।”

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*