Friday, October 14, 2011

পায়েল নামক মেয়েটিকে এলপাতারি চুদা

শেষে ঘুরে ঘুরে ক্লান্ত আর নিরাশ হয়ে নিজের নিজেরআস্তানায় ফেরার পালা। আমি যাব ভাসি আর পায়েল যাবে কুর্লা।যাইহোক ঠিক করলাম পরের দিন আবার দেখা যাবে। নাহলে তার পরেরদিন শনিবার ছুটিরদিন, সারাদিন পাওয়া যাবে। আমি ভাসি স্টেশন পর্যন্ত এলাম ওকে এগিয়ে দিতে।পায়েল চলে যেতে, পায়ে পায়ে এগিয়ে গেলাম রঘুলীলা শপিং-মল। একটা সিমকার্ড প্রয়োজন। পরের দিন দুজনেই আপয়েনমেন্ট পেলাম। যেমন কথা ছিল অন্যদিকের কিছু বাড়ি দেখা হল। সেই একই ঘটনার পুনরাবৃ্ত্তি।
দু-এক জনের সাথেকথা বলা হল কিন্তু তারা বেচেলার একমডেশনে রাজি নয়। আবার নিরাশা। পায়েলআমাকে আস্বস্ত করল। আমি পায়েলের সেল নম্বর চাইতে ও অদ্ভুত দৃষ্টিতে আমারদিকে দেখল। আমি হাওয়া ঠিক বুঝতে না পেরে আমার নম্বরটাই ওকে দেওয়াটাইশ্রেয় মনে করলাম। ও আমার দুটো নম্বরই নিল। যখন সেভ করছিল ওর মুখে একটাঅদ্ভুত হাসি দেখলাম। ও আমাকে বলল, পরেরদিন সকালে কল করবে, তারপর সেই বুঝেপ্ল্যান করা যাবে। রাত দশটা নাগাত ফোন এলো। আমার নতুন নম্বর চালু হয়ে গেছেতা জানাতে। আমি সিম বদলে নিলাম।রাত বারোটা নাগাত একটা মিস কল এল। না বুঝে পাত্তা দিলাম না। নতুন নম্বরে কেআর কল করবে। ফোনটা সাইলেন্ট করে শুয়ে পড়ে ছিলাম। ভোররাতে যখন বাথরুমযাবার জন্য উঠলাম, দেখলাম ফোনে চারটে মিসকল। সেই অচেনা নম্বর। সকালে উঠলামসাড়ে-সাতটা নাগাৎ। মুখ ধুয়ে নাস্তার পথে একবার মিসকল দিলাম ওই অচেনানম্বরে। প্রায় সাথে সাথে কল এলো। এবার আর মিস করলাম না, সাথে সাথে তুলেনিলাম। পায়েল। প্রথমে একটু রাগ, রাত থেকে চেষ্টা করছি ফোন নিচ্ছনা কেন? এইধরনের অনু্যোগ। যাই হোক আমাকে ভাসি স্টেশনে যেতে বলল, কারন একটা বাড়িরসন্ধান পাওয়া গেছে, ও অলরেডি ভাসি স্টেশনে অপেক্ষা করছে। নাস্তা মাথায়তুলে একটা অটো নিয়ে দৌড়লাম ভাসি স্টেশন।যতটুকু বিরক্তি এসেছিল তা ওকে দেখে নিমেষে উধাও হয়ে গেল। একটা হাল্কা লেবুরঙের পাতিয়ালা পরেছে, নাকে একটা এখনকার মডার্ন নথ। একটা লম্বাটে বিন্দি।সম্ভবত চান করে এসেছে, তাই চুল খোলা আর ভিজে চকচক করছে। আমি স্বাভাবিকসৌজন্যে আমার এমন বোকামির জন্য ক্ষমা চাইলাম। ও-ও ওর ফোনে রূঢ ব্যবহারেরজন্য সরি বলল। আসলে একটা আসিয়ানা না থাকলে টেনশন বোধ হয় এমনিই আসে। শেষপর্যন্ত বাড়ি পাওয়া গেল। সানপাড়াতে একদম পামবিচ রোডের উপর ভাসি স্টেশনেরথেকে প্রায় পনের-কুড়ি মিনিটের হাঁটা পথ। দুটো বাথরুম সংযুক্ত বেডরুম আরমাঝে একটা হলঘর, একটা রান্নাঘর। আমার পছন্দ মতো একটা ব্যালকনিও আছে হলেরসাথে লাগোয়া। সবচেয়ে বড় পাওনা ফুল ফারনিসড ফ্ল্যাট, আর ভাড়া আমাদেরসাধ্যের মধ্যে। একটাই সমস্যা হল পুলিশ ভেরিফিকেশন চাই। কিন্তু দুজনঅবিবাহিত ছেলে-মেয়ে কি করে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স পাবে। কেয়ারটেকারকেবুঝিয়ে-সুঝিয়ে রফা হল, অন্তত একজনের ক্লিয়ারেন্স চাই। কটাদিন যে কিভাবেকাটল ধরা গেলনা। দুজনের আলাদা চাবি করা হল। ঘরের সব প্রয়োজনীয় সামগ্রীনেওয়া হল।ট্রেনিং শেষে আমার ডিউটি পড়ল সকালে ৯টা থেকে ৬টা। আর পায়েলের রাতে ১১টাথেকে সকাল ৮টা। স্বাভাবিক ভাবে উইকডেতে আমাদের দেখা হত খুব ব্যাস্ততারমধ্যে। তাই দেখা হওয়া কথা বলা সব হত উইক-এন্ডে। তাও অনেক উইক-এন্ডেইনিজেদের বন্ধু-আত্মীয় স্বজনদের বাড়ি যাওয়া ছিল।প্রথম প্রথম স্বাভাবিক থাকলেও ধিরে ধিরে পায়েলের কিছু অস্বাভাবিক স্বভাবআমার গোচরে এলো। ওর বেডরুমের দরজা না লাগিয়ে ন্যুড শোয়া। সারা মেঝেতেছড়িয়ে পড়ে থাকা ওর সমস্ত পোষাক, এমন কি ব্রা, পেন্টি বা ওর জাঙ্গিয়াপর্যন্ত। কখনো কখনো ডিউটি যাওয়ার পথে পাতলা চাদরের ভিতর ওর সম্পুর্ন নগ্নদেহ খোলা দরজার ফাঁক দিয়ে ধরা দিত। সেই চাদর সরে গিয়ে ওর শরীরের কিছুকিছু লোভনীয় অংশও চোখে পড়ত। দুর্ঘটনা থেকে বাঁচতে তাড়াতাড়ি পালিয়ে যেতামঅফিস। এছাড়াও কখনো কখনো আমার ঊপস্থিতি সম্পুর্ন অগ্রাহ্য করে পাতলা, অর্ধস্বচ্ছ্ব, অতি সংক্ষিপ্ত পোশাকেও এ ঘর ও ঘর করত। কখনো যে ওকে কিছু করতেইচ্ছা হত না তা নয়। বরং কখনো কখনো আমার ভিতরের পশুটা জেগে উঠত। মনে হতওকে জাপ্টে মাটিতে ফেলে… ওর ঐ পোষাক খুলে… আমার ঠোট, দাঁত আর হাত দিয়ে ওরসারা শরীরে আমার প্রবল উপস্থিতির জানান দিই। আমার যৌবনের খিদেটা ওর শরীরদিয়ে মিটিয়ে নিই। কিন্তু অন্য আশঙ্কায় পিছিয়ে আসতাম। যদি ওর সম্মতি নাথাকে, যদি চলে যায়, তাহলে ওর ঐ লোভ্নীয় শরীর আমার চোখের সামনে থেকে চিরদিনের মত চলে যাবে।ওর শরীরের সবচেয়ে লোভনীয় ছিল ওর পিঠ। ঠিক যেন বাঁকানো তীরের ফলা। ফর্সা, কমনীয়, নরম মাখনের মতো পিঠে কোমর থেকে একটা সরু গভীর খাদ পিঠের মাঝ বরাবরউঠে ধিরে ধিরে কোথায় যেন হারিয়ে গেছে। ওর বুক গুলো ছিল ঠিক যেন মালভুমিরপাহাড়ের মত গোল খাড়া খাড়া। ওর ওই খাদ আমার অতি পরিচিত হলেও ওখান থেকে চোখফেরানো আমার কাছে খুব কষ্টকর ছিল। প্রথম প্রথম ভীষণ অস্বস্তি হলেও ধিরেধিরে অভ্যাস হয়ে গেল। একটা সময় এল যে, ওর শরীর আমি চোখ দিয়ে খেতে শুরুকরলাম, কি সাংঘাতিক তার নেশা। ধিরে ধিরে উইক-এন্ডে আমাদের দুজনেরই আত্মীয়বন্ধুদের বাড়ি যাওয়া কমে এলো। তখন দুজনে তাস বা দাবা খেলে টাইমপাস করতামনা হলে সিনেমা যেতাম।পায়েল ছিল খুব সাংঘাতিক টিজার। এই সঙ্গে বলে রাখি স্কুলে-কলেজে আমি ছিলামদাবা চাম্পিয়ন। কিন্তু ওর সাথে দাবা খেলতে বসলে আমার হার অনিবার্য ছিল।কখনো কখনো এমন ভাব করত যেন ও একটা পাঁচ-ছ বছরের বাচ্চা মেয়ে। আর বসিয়েবসিয়ে ও আমার কামনা বাসনাকে রীতিমত ওর তালে নাচাত। খেলতে খেলতে ওরঅর্ধস্বচ্ছ্ব কাপড় ইচ্ছাকৃত ভাবে এমন ভাবে ঢলে পড়ত যেন সেটা খুবইস্বাভাবিক কিছু। খেলতে বসে আমার চোখ পড়ে থাকত ওর নব্বই শতাংশ খোলা বুকেরওপর। আর মন, লুকোচুরি খেলতে থাকা সবচেয়ে লোভ্নীয় বাকি অংশের কল্পনায়বিভোর থাকত। কেমন সুন্দর,কতটা সুন্দর, কতটা লম্বা, কতটা শক্ত; কি রঙ, গোলাপী না বাদামি, না আরো গাঢ়! কখনো ওর থেকে একটা সুন্দর নেশা ধরানোর মতসোঁদা গন্ধ পেতাম, চোখ স্বয়ংক্রিয় ভাবে চলে যেত নিচে। ওর লম্বাটে গভীরনাভি, ওর নরম কোমর, মাথা খারাপ করা কাঁখের ভাঁজ নিয়ে ও আমার ভেতরে জানিনাকি ভাবে যেন খেলা করত। ওর পাতলা টাইট হাফপেন্টের ভেতর অস্পষ্ঠ যোনির ঠোটআমার চোখে স্পষ্ট হয়ে উঠত।প্রায় সময়েই খেলা শেষ হবার আগেই আমার সংযমের বাঁধ ভেঙ্গে আমারআগ্নেয়গিরিতে বিস্ফোরণ হয়ে যেত। একরাশ লজ্জা, অসহায়তা নিয়ে আমার খেলাশেষ হত। খেলা শেষে জিজ্ঞাসা করত আমার মুখ লাল কেন। এমন ভাব করত যেন ওজানেনা কেন। মজা করে আমাকে উপদেশ দিত, খেলা নিয়ে এত সিরিয়াস হওয়া উচিৎনয়। পায়েলের একটা বড় গুন ছিল ওর রান্না, ওর রান্নার হাত ছিল অসাধারন। আরতেমনি সুন্দর ছিল ওর পরিবেশন। নিয়ম হয়েছিল অন্যন্য দিন আমি বাজার করেরাখবো আর ও রান্না করে রাখবে। কিন্তু ছুটির দিন, ওর একটা শর্ত ছিল যে আমাকেওর সাথে রান্নাঘরে থাকতে হবে। সাধারনত আমি কাটাকুটি করতাম আর ও বাকি সবকিছু করত।রান্নাঘরটাতে কেন জানিনা গরম খুব বেশি হত। তাই ব্রা পরত না। একটা পেটেন্টপোষাক ছিল, সেটা পরত। পিঠ খোলা, উরু পর্যন্ত ঝুলের পাতলা গেঞ্জি কাপড়েরএকটা টেপ ফ্রক। স্বাভাবিক ভাবেই রান্না করতে করতে ওর অস্পষ্ট শরীর ঘামেভিজে আরো স্পষ্ট হয়ে উঠত। খেলার সময় যা আমার গবেষনার বিষয় হত তারান্নাঘরে আরো স্পষ্ট হয়ে উঠত। রান্নাঘর আমার পছন্দর যায়গা না হলেও, ওরশরীরের নেশায় বুঁদ হয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা রান্নাঘরে আটকে থাকতাম। ওর শরীরেরগলিপথে নাক লাগিয়ে ঘামের গন্ধ নেবার জন্য অথবা ওর পিঠের থেকে গড়িয়েপড়া কোমলতার স্বাদ নেওয়ার জন্য যখন আমার শরীর ভেতরে ভেতরে পাগল হয়ে উঠততখনই হঠাৎ উপরের সেল্ফ থেকে কিছু নেবার সময় ওর থং পরা পাছার অর্ধেকবেরিয়ে পড়ত। রান্নাঘর থেকে বেরিয়ে প্রায়শই আমি দৌড়তাম বাথরুমে। ওর সদ্যদেখা শরীর কল্পনা করে হাল্কা না হওয়া পর্যন্ত স্বস্তি পেতাম না। মোটেরওপর পায়েল ছিল, চমৎকার, আত্মবিশ্বাসী, টিজার,দুষ্টুমিভরা, খেলুড়ে মেয়ে।সে জানত ঠিক কি ভাবে মায়াজাল বিস্তার করতে হয় আর গুটিয়ে তুলতে হয়।আমাকে নিয়ে ওর ঐ খেলা হয়তো ওর দুষ্টুমির একধরনের অনুশীলন ছিল।আমাদের সদর দরজায় সব সময়েই অটোমেটিক ডোর-লক থাকত। বাইরে থেকে চাবি ছাড়াদরজা খোলা যাবে না। একদিন ঘরে ফিরে আমি আমার চাবি দিয়ে মেন দরজা খুলে, হলপেরিয়ে যখন নিজের ঘরের দিকে যাচ্ছি, দেখলাম পায়েলের ঘরের দরজা হাল্কাখোলা। পায়েল সব সময় নিজের ঘর লক করে অফিস যেত। ঘরের থেকে একটা অদ্ভুতহাল্কা শব্দে ওর দরজার ফাঁকে চোখ রাখলাম। এবং চোখের সামনে যা দেখলাম তাতেআমি স্তম্ভিত। সমস্ত অনুভুতি আমার লোপ পাবার পথে। পায়েল দরজার দিকে পিঠকরে ওর বিছানায় বসে কম্পিউটারে সম্ভবত পর্ণ দেখছে। আমার সারা শরীর থরথরকরে কাঁপতে শুরু করল। কানে হেডফোন থাকায় হয়তো মেন দরজা খোলার আওয়াজপায়নি। ওকে প্রথমবার বেয়ারব্যাক দেখলাম। একবার ভাবলাম এই সুযোগেরসদ্ব্যাবহার করি। কিন্তু কৌতুহল, ওর ঐ যৌনতা দেখার অনুসন্ধিৎসা আমার কাছেতার চেয়েও প্রবল হয়ে উঠল। দরজার ফাঁক দিয়ে ও কি দেখছে তা ঠিক ঠাওর করতেনা পারলেও ওর কর্মকান্ড, এক নিষিদ্ধতার ইঙ্গিত দিল। বুঝলাম শরীরের ভীতরেরআগুন প্রশমিত করতে ব্যস্ত এক হাত ওর বুকে আর এক হাত ওর যোনিতে। জানিনা কখনআমার হাত আমার জিওন কাঠিতে ব্যস্ত হয়ে উঠেছে। এমন সময়ে হঠাৎ ওর শরীরমুচড়ে বিছানায় আছড়ে পড়ল।আমি আর নিজেকে সামলাতে পারলামনা। বেসামাল হয়ে দরজাটায় হাত পড়ে গেল। ভয়েপালাতে গিয়ে আরেক বিপত্তি, সোফায় হোঁচোট খেয়ে সটান পতন। কি হয়েছে তাদেখার জন্য,হেডফোন খুলে ঘুরে তাকাতেই,আধখোলা দরজা দিয়ে আমি, পায়েলেরকাছে স্পষ্ট। পরিস্থিতিটা ওর মতো বুদ্ধিমতি মেয়ের কাছে অনুমান করতে কোনোঅসুবিধাই হবার কথা নয়। দুজনেই পরস্পরের কাছে নগ্ন। কিভাবে পরিস্থিতিরসামাল দেব ভাবছি, ও ঊঠল। আমার দিকে না ঘুরে লজ্জা ঢাকার জন্য বিছানায় পড়েথাকা বালিসের তোয়ালেটা তুলে নিয়ে বুকটা ঢেকে নিল। তারপর খাট থেকে নামবারসময়ে আমার দিকে একবার তাকালো। ওর আলুথালু চুল, আর শুধু তোয়ালে বুক থেকেযোনি পর্যন্ত ঢাকা। আমার মাথা ঝিমঝিম করছে। না দেখলেও বুঝতে পারছি কান মাথাসব লাল। নেমে আমার দিকে হাল্কা লজ্জা আর দুষ্টু একটা রহস্যময় হাসি নিয়েধিরে ধিরে মদালসা ভাবে এগিয়ে এল। ঠিক যেন চিতা বাঘের সামনে বাঁধা আমি একটাহরিন। এসে আমার সামনে দাঁড়ালো।ওর শরীর ঘামে ভিজে আছে। তার সাথে একটা সুন্দর সোঁদা গন্ধ, ওর শরীর থেকেআসছে। সব তালগোল পাকিয়ে গেছে মাথায়। আস্তে আস্তে ও বসল আমার কোল ঘেঁসে।আমার চোখে চোখ রেখে বলল, ভয় পাও আমাকে? এ কথার কি জবাব হয় তা আমার জানা নেই। আমার নাকটা একটু নেড়ে আদর করে বলল, বাঙালিবাবু, আমি বাঘ নই, মানুষ। একটা মেয়ে, আমাকে ছুঁলে আমি তোমাকে খেয়ে নেবনা । এটুকু আমার জন্য যথেষ্ট। আমি ওর কাঁধটা ধরলাম, ও তোয়ালে ছেড়ে আমার গলা জড়িয়ে ধরে কপালে একটা চুমু খেল। আমি আষ্টেপিষ্ঠে জড়িয়ে ধরলাম ওকে। মেয়েদের শরীর এত নরম হয়! এতো আমার কল্পনার অতীত। ও ওর সমস্ত শরীরের ভার আমার ওপর ছেড়ে দিল। আমি একটা হাতে ওর ঘাড়ের কাছে ধরে আস্তে আস্তে চুমু খেতে শুরু করলাম ওর কপালে, চোখে, গালে। ও আর ধৈর্য রাখতে পারলনা। দুহাতে আমার চুলে হাত ডুবিয়ে মাথাটা ধরে, আমার ঠোটে ঠোট ডুবিয়ে দিল। দুজনের দুটো ঠোট যেন চুপচাপ কথা বলে গেল একে অপরের সাথে,আমি এতদিন পায়েলকে নিয়ে যা কল্পনা করে এসেছি, আজ তার থেকেও সুন্দর করে সাড়া দিল পায়েল আমার ঠোটের প্রতিটি কথার।
আমার আরেক হাত কখন জানিনা ওর কোমরে চলে গেছে। ওর ঠোট চুষতে চুষতে হাল্কা করে কামড়ে দিলাম দুষ্টুমি করে। ও মুখটা সরিয়ে নিয়ে দুষ্টু হেসে বলল, বদমাস। তারপর, আমার কোলের ওপর কোমর রেখে আড়াআড়ি করে শুয়ে পড়ল। সম্পুর্ন নিরাভরন। শুধু কোমরের কাছে তোয়ালেটা যোনিটা ঢেকে আছে আলগোছে। ওর চোখে কামনার স্পষ্ট ইঙ্গিত। হাতটা ওপরে করে চুলটা গোছা করে ধরে আছে একটা সুন্দর ব্যাথায়। খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে আজ দেখছি ওর সেই রহস্যময় শরীর। বগলটা পরিস্কার, একেবারে বাচ্ছাদের মতো। বুকটা সুন্দর গোল, ছোট্ট বাদামি এরিওলাতে ছোট্ট একটা গোলাপী বোঁটা। মেদহীন পাতলা কোমর আর লম্বাটে নাভি।
আমি তোয়ালেটা সরিয়ে দিলাম। ও হাল্কা একটা ইশশ্ শব্দ করে মুখটা লজ্জায় ঘুরিয়ে নিল। আমার হাতের ছোঁয়ায় হাল্কা কেঁপে উঠল ওর শরীর। ওর ঊরু কচি কলাগাছের মতো ভরাট আর সুন্দর, নমনীয় আর কমনীয়। ও একটা পা উঁচু করে রেখেছে। সেটা হাল্কা করে সরিয়ে দিলাম সুখ গহ্বরের সৌন্দর্য দেখার জন্য। ওর ভগাঙ্কুরটা লাল, যোনির ঠোট দুটো কামনায় পরিপুষ্ট। ওকে ঠিক পরীর মতো লাগছে। হাল্কা ছুঁলাম ওর ভগাঙ্কুর। ও মাই গড!! বলে ও উঠে বসল। এবার ও আমার কোলে, সম্পুর্ন নগ্ন।
আমার চোখে চোখ রেখে সেই দুষ্টু হাসিটা ঠোটে নিয়ে বলল, কি দেখছ, এমন করে?
আমি বললাম -তোমাকে।
- কেন আমাকে আগে দেখনি।
- দেখেছি, কিন্তু এমন করে নয়।
- পছন্দ হল আমাকে।
কথা বলতে বলতে চোখ গেল ওর সন্মোহনকারি বুকে। আমার দৃষ্টি অনুসরন করে ও বলল, জানো কত ব্যাথা এই বুকে! আমি ওর ঠোটে একটা চুমু খেয়ে আস্তে করে খুটে দিলাম ওর বোঁটা। ও -হাঃ- করে একটা শব্দ করল। ওর বোঁটাগুলো শক্ত হয়ে উঠল। আমার মাথাটা ধরে ও আমার সারা মুখ চুমুতে ভরিয়ে দিল। ওর নিশ্বাস ভারি, সারা শরীর ঘামে ভিজে গেছে। আমি ওকে শুইয়ে আস্তে করে মুঠো করে ধরলাম ওর বুক। একেবারে আমার হাতের মাপে। অসাধারন এক অনুভূতি। ঠোঁট স্বয়ংক্রিয় ভাবে নেমে এলো ওর অন্য বুকে। হাল্কা একটা চুম্বন, কেঁপে উঠল ও। জিভ দিয়ে ওর এরিওলার চার দিকে ঘোরালাম। ও বেঁকে ঊঠল। হাল্কা একটা খুঁতখুঁত আওয়াজ করছে ও। চেটে নিলাম ওর বুকের ঘাম, ওর এরিওলা সমেত বোঁটাটা ঠোঁটে নিয়ে একবার চুষলাম। ওর শরীর মুচড়ে মমম্ করে উঠে উপুড় হয়ে গেল।
এখন ওর খোলা পিঠ, ঘাড়ের কাছ থেকে চুলগুলো সরিয়ে, ঘাড়ে ঠোট ঘষতেই খুঁতখুঁত আওয়াজ করে, হিসহিসিয়ে বলে “ইউ আর সাচ এ টিজার!” আস্তে আস্তে নেমে এলাম পিঠে। চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিলাম সমস্ত পিঠ। সেই সঙ্গে দুহাত দিয়ে অনুভব করে চলেছি ওর বুকের নমনিয়তা। তারপর ওর কোমরের কাছে এসে, ওর ওই সুন্দর নিতম্বের নেশায় বুঁদ হয়ে চুমু খেতে খেতে হাল্কা করে একটা লাভবাইট দিলাম। ও কামনায় ছটফট করে অহহ শব্দ উঠে আবার সোজা হয়ে ফিরল। এবার আমার মুখের সামনে ওর নাভী। ওর পেট থেকে ঠোট ঘসে ওর নাভীতে একটা গভীর ভাবে চুমু খেলাম। ওথরথর করে কাঁপতে শুরু করল। আমার মাথাটা চেপে ধরল। আমি নেমে এলাম ওর যোনিতে, জিভটা ঢুকিয়ে দিলাম দুটি ঠোটের মাঝে। ও বেঁকে উঠল, শীতকার করতে করতে আমার মাথাটা ওখানে যতটা সম্ভব চেপে, কাঁপাকাঁপা গলায় বলল, “হোল্ড মি টাইট, ঠোল্ড মি টাইট প্লিজ।” আমি নাকটা ওর ভগাঙ্কুরে চেপে আচমকা মাথা নাড়ালাম, ও ছিটকে ছিটকে উঠল। সেই সঙ্গে সুন্দর সোঁদা গন্ধটা আবার পেলাম সাথে সাথে আমার আগ্নেওগিরিতেও বিস্ফোরন ঘটল। ক্লান্ত ভাবে ও উঠে বসল। আমার ঠোটে একটা গভীর চুমু খেয়ে উঠে পালাতে গেল। আমি হাতটা ধরে ফেললাম, বললাম “আর আমার পাওনাটা?” আমার প্যান্টের দিকে ইঙ্গিত করে মুচকি হেসে বলল, “আমিতো আছিই আর রাতটাও পড়ে আছে। আর কাল তোমার ছুটি, তাই না!!”

যৌনতা ও জ্ঞান © 2008 Por *Templates para Você*